NID Online Copy বের করা ও হারিয়ে যাওয়া NID পাওয়ার জন্য Online এ আবেদন প্রক্রিয়া

180
NID Online Copy

NID Online Copy বের করা ও NID কার্ডটি হারিয়ে গেলে সেটা পুনরায় পাওয়ার জন্য Online এ আবেদনের প্রক্রিয়া টি খুব সহজে এখান স্টেপ বাই স্টেপ করে দেখানো হয়েছে।

আমাদের চলার পথে বিভিন্ন কারনে আমাদের NID কার্ড বা জাতীয় পরিচয় পত্র টি হারিয়ে যেতে পারে। এই জাতীয় পরিচয় পত্র টি আমাদের দৈনন্দিন বিভিন্ন কাজে কর্মে প্রয়োজন হয়ে থাকে। আর সেটি যদি হারিয়ে যায় তাহলে কষ্টের কোন শেষ নেই।

তবে আপনার NID বা জাতীয় পরিচয় পত্র টি হারিয়ে বা নষ্ট হয়ে গেলেও এখন আর টেনশনের কিছু নেই। তার জন্যও বেবস্থা করে রেখেছে সরকার। যদি কোন কারনে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র টি হারিয়ে যায় অথবা নষ্ট হয়ে যায়। তাহলে খুব সহজে ঘরে বসেই অনলাইনে আবেদনের মাধমে আপনি আপনার NID Online Copy টি পুনরায় বের করতে পারবেন।

পরবর্তীতে আপনার স্থানীয় নির্বাচন কমিশন হতে সেটা নতুন করে ফিরেও পেতে পারবেন। যতদিন আপনি মূল NID টি হাতে নে পাচ্ছেন ততদিন এই NID Online Copy টি দিয়ে আপনার কাজ চালিয়ে নিতে পারবেন।

জাতীয় পরিচয় পত্র পুনরায় পাওয়ার জন্য আপনাকে মূলত তিনটি ধাপ অনুসরণ করতে হবে। যার প্রথম ধাপে আপনাকে আপনার নিকটস্থ থানায় গিয়ে একটি জিডি (জেনারেল ডাইরি) করতে হবে। তারপর নির্বাচন কমিশনের একটা নির্দিষ্ট ফি আছে যেটা আপনাকে রকেট একাউন্টের মাধমে জমা দিতে হবে। তারপর সর্বশেষে নির্বাচন কমিশনের ওয়েব সাইটে গিয়ে অনলাইনে NID Online Copy পাওয়ার জন্য আবেদন করতে হবে।

এই সবগুলো ধাপই একদম সহজ। যা আপনি এখানে দেয়া নির্দেশনাগুলো একটু মনোযোগ দিয়ে অনুসরণ করে নিজেই আপনার NID Online Copy বের করতে ও হারানো NID পাওয়ার জন্য আবেদন করতে পারবেন। তাহলে চলুন শুরু করা যাক।

১। থানায় জিডিঃ আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র টি হারিয়ে বা নষ্ট হয়ে গেলে প্রথমেই আপনাকে আপনার নিকটস্থ থানায় গিয়ে একটি জিডি (জেনারেল ডাইরি) করতে হবে। জিডির আবেদন পত্রে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র টি হারিয়ে বা নষ্ট হয়ে যাওয়ার মূল কারন উল্লেখ করে আবেদন করতে হবে।

জিডি বা আবেদনের একটি নমুনা কপি এখানে দেয়া হল। যেটা ফলো করে আপনি একটি পূর্ণাঙ্গ জিডির আবেদন তৈরি করে ফেলতে পারবেন।NID Online Copy

জিডির আবেদন পত্র দুইটি কপি লিখতে হবে। তারপর থানায় গিয়ে দায়িত্বরত কর্মকর্তার নিকট দুইটি আবেদন পত্রই একসাথে জমা দিতে হবে। তারপর দায়িত্বরত কর্মকর্তা থানার রেজিস্টারে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রটি হারানোর তথ্য এন্ট্রি করে একটি জিডি নম্বর ও তারিখ দিয়ে একটি কপি থানায় জমা রেখে দিবেন। তারপর অপর কপিটি আপনাকে ফেরত দিবেন। এভাবে থানায় জিডির মাধ্যমে আপনার NID Online Copy বের করার প্রথম ধাপ সম্পন্ন হল।

২। ফি জমাঃ এখন দ্বিতীয় ধাপে আপনাকে একটি রকেট একাউন্টের মাধমে নির্বাচন কমিশনের নির্ধারিত ফি জমা দিতে হবে। এখন রকেট একাউন্ট খোলা একেবারেই সহজ। গুগল প্লে ষ্টোর থেকে রকেট অ্যাপটি আপনার মোবাইলে ডাউনলোড করে ঘরে বসে সহজেই আপনি একটি রকেট একাউন্ট খুলে নিতে পারেন।

রকেট একাউন্ট খোলার পর আপনার একাউন্টে নির্বাচন কমিশনের নির্ধারিত ফি এর টাকাটি আগে থেকেই জমা করে রাখতে হবে। আবেদনপত্র পূরণকালিন একটি নির্দিষ্ট সময়ে ফি জমা দিতে বলবে। তখন আপনার রকেট একাউন্টে প্রবেশ করে Bill Pay অপশন এ ক্লিক করুন। তাহলে অসংখ্য পেমেন্ট অপশন দেখতে পাবেন।

সেখান হতে আপনাকে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের অপশনটি বা EC Bangladesh নির্বাচন করুন। যদি কোন কারনে আপনি খুজে না পান তাহলে সার্চ বক্সে টাইপ করুন 1000 or EC তাহলে সহজেই আপনি পেয়ে যাবেন EC Bangladesh. এখন EC Bangladesh লেখা মেনুতে ক্লিক করুন। তাহলে EC Bangladesh এর পেইজ টি ওপেন হবে। এখানে NID Number এর ঘরে আপনার NID Number টি বসাতে হবে।

তারপরে Application Type এ Click করুন। তাহলে ৫টি Menu চলে আসবে। এখান থেকে আপনাকে একটি Menu নম্বর Select করে দিতে হবে। আপনার চাহিদার ধরন ০৪ নম্বরটির সাথে মিল থাকলে ০৪ Type করেন। আর যদি আপনার চাহিদার ধরন ০৫ নম্বরটির সাথে মিল থাকলে ০৫ Type করেন।

তবে Regular Fee কম অর্থাৎ 230/= টাকা (কম/বেশি হতে পারে) দিতে হবে। আর Urgent এর Fee 345/= টাকা (কম/বেশি হতে পারে) দিতে হবে। তাই আপনার যেটা দরকার সেটা Select করুন। তারপর Pay For এর ঘরে গিয়ে আপনি যদি নিজের জন্য এপ্লাই করেন তাহলে Self নির্বাচন করে দিন। সবশেষে VALIDATE Button এ Click করুন। তাহলে Confirm Bill Payment Option এ চলে যাবেন।

এখানে আপনি সমস্ত তথ্য পুনরায় মিলিয়ে নিয়ে আপনার রকেট একাউন্টের পিন নম্বরটি দিয়ে Send করে দিন। তাহলে Successfully Payment করা হয়ে যাবে এবং সাথে সাথে আপনার মোবাইলে একটি SMS চলে আসবে। এই SMS টি সংরক্ষণ করে রাখুন। এভাবে ফি জমা দেয়ার মাধ্যমে আপনার NID Online Copy টি পাওয়ার দ্বিতীয় ধাপ সম্পন্ন হল।

৩। অনলাইনে আবেদনঃ আপনি প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপ সফল ভাবে সম্পন্ন করে থাকলে এখন শেষ ও তৃতীয় ধাপে এসে আপনাকে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের ওয়েব সাইটে গিয়ে NID Online Copy র জন্য আবেদন করতে হবে। আবেদনের প্রসেসটি একটু জটিল মনে হতে পারে। তবে ঘাবড়ানোর কিছু নেই।

প্রথমে আপনাকে রেজিস্ট্রেশান করে পুনরায় লগিন করে সাইটে প্রবেশ করতে হবে। রেজিস্ট্রেশানের জন্য আপনার মোবাইলে বা পিসিতে থাকা গুগল ক্রোম ব্রাওজার গিয়ে সার্চ বারে টাইপ করুন https://services.nidw.gov.bd/registration অথবা এখানে ক্লিক করুন। তাহলে নিচের চিত্রের মত বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের NID Online Copy আবেদনের ওয়েব সাইটের নির্দিষ্ট পেইজটি চলে আসবে।NID Online Copy Registration

এখন চিত্রে উল্লেখ করা অপশানে (রেজিস্ট্রেশন ফরম পূরণ করতে চাই) ক্লিক করুন অথবা এখানে ক্লিক করুন। তাহলে রেজিস্ট্রেশন ফরম টি আপনার সামনে চলে আসবে। ফরমে চাওয়া তথ্য সমূহ আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রটির সাথে মিলিয়ে পূরণ করে ফেলুন। রেজিস্ট্রেশন ফরম টির ডান পাশে কিছু নোট দেয়া আছে। প্রয়োজনে পড়ে নিতে পারেন।

এখানে একটি বিষয় মনে রাখতে হবে যে, প্রত্যেকের জন্যই একটি করে আলাদা ইউজার আইডি ও পাসওয়ার্ড হবে। রেজিস্ট্রেশন কমপ্লিট করে পুনরায় ওয়েব সাইটে লগিন করলে নিচের চিত্রের ন্যায় আপনার ছবি সম্বলিত হোম পেইজটি চলে আসবে।

আপনি যেহেতু আপনার জাতীয় পরিচয়পত্র টি হারিয়ে বা নষ্ট করে ফেলেছেন এবং আপনি জাতীয় পরিচয়পত্র টি পুনরায় নিতে চাচ্ছেন সেহেতু Reissue (রিইস্যু) তে ক্লিক করুন। আর যদি আপনার NID টি Download করতে চান তাহলে Download (ডাউনলোড) এ ক্লিক করুন। তাহলে আপনার NID Online Copy টি Download হয়ে আপনার ড্রাইভে সেইভ হয়ে যাবে। তারপর প্রিন্ট করে নিন।

নিচের চিত্রের ন্যায় Reissue পেইজ টি ওপেন হবে। Reissue পেইজ এর ডান পাশে কয়েকটি অপশান দেখা যাবে। সেখানের Edit অপশান এ Click করুন। তাহলে সাথে সাথে একটি Pop-Up Window চলে আসবে। এখন বহাল Button এ Click করুন। নিচে দুটি অপশনই চিত্রে তীর চিহ্নর সাহায্যে দেখানো হয়েছে।

বহাল বাটনে ক্লীক করলেই পুনরায় Reissue পেইজ টি চলে আসবে। এখানে পুনমুদ্রন কারন এর ড্রপ ডাউন এ Click করে লিস্ট হতে আপনার NID Reissue র সঠিক কারন টি নির্বাচন করে দিন। অর্থাৎ আপনার NID উত্তোলনের মূল কারন কি হতে পারে তার কিছু কারন লিস্টে থাকা অপশন হতে সিলেক্ট করে দিতে হবে।

যদি আপনার NID কার্ডটি যদি চুরি অথবা হারিয়ে গিয়ে থাকে। তাহলে হারিয়ে গেছে অথবা চুরি হয়ে গেছে কথাটি Select করে দিন। তারপর আপনার জিডি নম্বর, থানা, পুলিশ অফিসারের নাম ও পদবি এবং তারিখ উল্লেখ করে দিন। আর যদি NID কার্ডটি নষ্ট হয়ে গিয়ে থাকে তাহলে জিডি নম্বর, থানা, পুলিশ ইত্যাদি কিছুই লাগবেনা। শুধুমাত্র নষ্ট হওয়া NID কার্ডটির একটি ছবি তুলে দিতে হবে।

সবকিছু এন্ট্রি করা হয়ে গেলে পরবর্তী তে ক্লিক করুন। এখন আপনাকে Reissue অপশনের Transaction বিবরণের ঘরে নিয়ে যাবে। এখানে আপনাকে আবেদনের ধরনবিতরনের ধরন নির্দিষ্ট করে দিতে হবে। দুইটি ঘরে থাকা ড্রপ ডাউন মেনুতে ক্লিক করে সবকিছু নির্দিষ্ট করে দিতে হবে। সবকিছু নির্দিষ্ট করা হয়ে গেলে পুনরায় পরবর্তী তে ক্লিক করুন।

এখন আপনাকে Reissue অপশনের ০৩নং অপশন অর্থাৎ কাগজপত্রের ঘরে নিয়ে যাবে। এখানে আপনাকে থানায় জিডির কপিটি আপলোড করে দিতে হবে। আপনার মত করে পড়ে পড়ে অন্যান্য অপশনগুলি সিলেক্ট করে দিতে হবে।

আর যদি NID কার্ডটি নষ্ট হয়েছে মর্মে পূর্বে উল্লেখ করে থাকেন তাহলে কাগজপত্রের অপশনে আপনাকে জিডির পরিবর্তে ঐ নষ্ট NID কার্ডটির ছবি আপলোড করে দিতে হবে। তখন আগে নষ্ট NID কার্ডটির একটি ছবি তুলে ড্রাইভে রেখে দিবেন।

সবকিছু ঠিক থাকলে পুনরায় পরবর্তীতে ক্লিক করুন। এখানে আপনার NID Online Copy আবেদনের সমস্ত তথ্য একত্রে দেখাবে। তাই সবকিছু ভাল করে চেক করে নিবেন। আর সবকিছু ঠিকমত হয়ে থাকলে সাবমিট এ ক্লিক করুন। তাহলে পুনরায় আপনাকে নিচের চিত্রের ন্যায় পূর্বের হোম পেইজে নিয়ে চলে আসবে। অর্থাৎ আপনার আবেদনের প্রক্রিয়াটি আপনি সম্পন্ন করলেন।

এখানে দেয়া বিভিন্ন অপশন হতে আপনি আপনার NID র সকল তথ্য সংগ্রহ করে নিতে পারবেন। এখানের রিইস্যু তে ক্লিক করে আপনার NID Online Copy র আবেদনের পিডিএফ কপিটি ডাউনলোড করে সংরক্ষণ করুন।

অনলাইনে আবেদনের প্রক্রিয়া শেষে আপনাকে আপনার স্থানীয় নির্বাচন কমিশনের অফিসে গিয়ে জানাতে বা আবেদন করতে হবে। সাধারনত আপনি যদি আর্জেন্ট এর জন্য আবেদন করেন তাহলে এক সপ্তাহের মধ্যেই জাতীয় পরিচয় পত্র টি পাওয়া যায়। আর যদি রেগুলার এর জন্য আবেদন করেন তাহলে পনের দিন সময় লাগতে পারে। তবে উভয়ক্ষেত্রে সময় কিছুটা কম বা বেশি হতে পারে। এটা সম্পূর্ণই নির্বাচন কমিশনের এখতিয়ার।

এ পর্যন্ত উপরে যত আলোচনা হয়েছে আশা করি আপনি বুঝতে পেরেছেন। আর অনলাইনে NID Online Copy বের করা ও হারিয়ে যাওয়া NID পাওয়ার জন্য আবেদনের প্রক্রিয়াটি খুবই সহজ। আপনি অনলাইনে কিছুটা পারদর্শী হলেই সবগুলো অপশন পড়ে পড়ে আশাকরি আপনি নিজেই ঘরে বসে সবকিছু করতে পারবেন।

এই জাতীয় পরিচয় পত্র টি বাংলাদেশ সরকারের একটি সম্পত্তি। বাংলাদেশের প্রত্যেকটি নাগরিক এই জাতীয় পরিচয় পত্র টি সম্পূর্ণ ফ্রীতে পাওয়ার অধিকার রাখে। তবে কোন বেক্তি যদি এটা রাস্তায় বা অন্য কোথাও পড়ে থাকতে দেখেন তাহলে নিকটস্থ থানায় জমা দেয়ার নিয়ম।

তবে জাতীয় পরিচয়পত্র টি সবসময় সাবধানে বা যত্নের সাথে ব্যাবহার করা উচিত। প্রয়োজনে মূল কপিটি নিরাপদ স্থানে সংরক্ষণ করে ফটোকপি টি সাথে রাখতে পারেন। তাহলে আর হারানোর ভয় থাকবে না।

পূর্ববর্তী আর্টিকেলঠোটের কালো দাগ দূর করুন মাত্র পাঁচ মিনিটে
পরবর্তী আর্টিকেলরোদে পোড়া দাগ দূর করে ত্বক ফর্সা করার সহজ টিপস

একটি মন্তব্য করুন

এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন
অনুগ্রহপূর্বক আপনার নাম লিখুন