Monday, January 18, 2021
হোম প্রচ্ছদ

মুখের ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর করার সহজ ১০ টি ঘরোয়া টিপস

0
মুখের ব্রণ ও ব্রণের দাগ
মুখের ব্রণ ও ব্রণের দাগ

মুখের ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর করার সহজ ১০ টি ঘরোয়া টিপস। ব্রণ হল সুন্দরী সকল রমনী‌দের জন্য প্রধান এক‌টি মারাত্মক অস্বস্তিকর একটি সমস্যা। এই ব্রণ স্বাভাবিক ভাবেই মুখের ও ত্বকের সৌন্দর্য নষ্ট করে দেয়। কম বয়সী সকল না‌রী পুরুষ বি‌শেষ ক‌রে টিনএজ সহ উভ‌য় বয়সী সকলেই এ সমস্যায় ভু‌গে থা‌কেন।

তবে সাধারনত তৈলাক্ত মুখ বা তৈলাক্ত ত্বকেই ব্রণ হতে দেখা যায় বেশি। আজকাল উঠতি বয়সী সকল তরুণ তরুণী, মাঝবয়সী নারীদেরও মুখে ব্রন হচ্ছে এবং কালো দাগ প‌ড়ে সমস্যা সৃ‌ষ্টি হ‌চ্ছে। আবার ত্বক থেকে এই ব্র‌নের কালো দাগ সহ‌জে মুছ‌তেও চায়না। যা প্রত্যেকের কাছে সবচাই‌তে বেশী অস্ব‌স্তিকর একটি বিষয়।

আর তখনই শুরু হয় নানারকম মানুসিক টেনশান। আর টেনশান থে‌কে শেষ পর্যন্ত সবার কাছ থে‌কে নি‌জে‌কে আড়াল ক‌রে ফেলা। যার কারনে একটা সময়ে গিয়ে ত্বকে ব্রনের পরিমাণ আরও বেড়ে যায় এবং তার থেকে কালো দাগের সৃষ্টি হয় ।সবচেয়ে বেশি খারাপ তখনই লাগে মুখের ব্রণ সেরে যাওয়ার পরেও যখন ব্রণের ক্ষত স্থানের দাগগুলো আমদের ত্বকে থেকে যায়।

তবে একটা বিষয় অবশই মনে রাখতে হবে যে, ব্রন হাত বা নখ দিয়ে খুঁটলে কিন্তু ত্বকে এমন দাগ বেশি দেখা দেয়। আর তখন এই ক্ষত দাগগুলোকে ত্বক হতে খুব সহজে দূর করা যায় না। তাই দীর্ঘদিন যাবত যারা মুখে ব্রণ ও কালো দাগ এর সমস্যায় ভুগছেন তাদের জন্য আমি অনেক রিসার্চ করে নিয়ে আসলাম আপনাদের জন্য ঘরোয়া ভা‌বে ব্রণের দাগ দূর করার সহজ কিছু উপায়।

তবে চলুন জেনে নেই মুখের ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর করার সহজ ১০ টি ঘরোয়া টিপস।

১। চিনি ও লেবুর রসঃ যাদের ত্বকে ব্রনের অনেক ক্ষত বা কালো দাগ রয়েছে ব্রণের দাগ রোধ করতে তারা নিয়মিত চিনি ব্যবহার করতে পারেন। কারণ চিনিতে আছে প্রচুর পরিমানে গ্লাইকলিক এসিড ও AHA উপাদান যা ত্বকের মৃত কোষ দূর করে এবং নতুন কোষ তৈরিতে সাহায্য করে। আর লেবুর রস যেকোনো দাগ তুলতে সাহায্য করে।

ব্যাবহার প্রনালিঃ প্রথমে এক টেবিল চামচ চিনি নিয়ে তাতে সামান্য অলিভ অয়েল ও লেবুর রস মিশিয়ে পেস্ট বানিয়ে নিন। তারপর ত্বকে ম্যাসেজ করুন। তারপর ১০ থেকে ১৫ মিনিট পর পরিস্কার পানি দ্বারা ধুয়ে ফেলুন। আর ভাল ফলাফল পেতে সপ্তাহে ২/৩ বার ত্বকে চিনির ও লেবুর এই পেস্ট টি ব্যবহার করুন। কিন্তু ত্বক পরিষ্কার করে ধুয়ে ফেলার পর অবশ্যই আপনার পছন্দমত একটি ময়শ্চার ক্রিম লাগাতে ভুলবেন না।

২। ভিটামিন-ই ক্যাপসুলঃ ত্বকের বা মুখের ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর করতে সবচেয়ে সহজ ও কার্যকরী উপায় হল ভিটামিন- ই। এই ভিটামিন ই ক্যাপসুল আকারে দকানে কিনতে পাওয়া যায়। ভিটামিন-ই ক্যাপসুল ব্রণের ক্ষত দাগ সারাতে খুব ভালো কাজ করে। তাই আপনার ত্বকের প্রতিদিনের ময়শ্চারাইযার হিসেবে ভিটামিন-ই ক্যাপসুল ত্বকে ব্যবহার করুন। ভিটামিন-ই ক্যাপসুল আপনার ত্বকের ক্ষত বা কালো দাগ দূর করার পাশাপাশি মুখের ব্রণও দূর করে দেয়।

৩। আলুর রসঃ প্রাকৃতিক বিভিন্ন ধরণের পুষ্টি গুন সম্পন্ন ও প্রাকৃতিক ভাবে মিনারেলে পরিপূর্ণ সবজি হল এই আলু। আলু আমাদের শরীর ও ত্বক উভয়ের জন্য খুবই উপকারী একটি সবজি। তাই আপনার মুখ থেকে ব্রণের দাগ দূর করতে আলুর জুস ব্যবহার করতে পারেন।

ব্যাবহার প্রণালীঃ প্রথমে একটি আলু নিয়ে কেটে ছোট ছোট স্লাইস করে নিন। তারপর সরাসরি ত্বকের ক্ষত বা কালো দাগ এর ওপর লাগিয়ে রাখুন। এছাড়া আলু ভালকরে ধুয়ে কেটে ব্লেন্ড করে তা থেকে রসটুকু নিয়ে ত্বকে ম্যাসেজ করুন। ভাল ফল পেতে আলুর রস ত্বকে লাগিয়ে পনেরো মিনিট অপেক্ষা করুন। তারপর কুসুম গরম পানি দিয়ে পরিস্কার করে মুখ ধুয়ে নিন। আপনি প্রতিদিন একটি নির্দিষ্ট সময়ে মাত্র একবার এইভাবে ত্বকে আলুর রস ব্যবহার করতে পারেন।

৪। টকদই  হলুদ গুঁড়াঃ টক দই ও হলুদের গুঁড়া দিয়ে মুখ বা ত্বক থেকে ব্রণের কালো দাগ খুব সহজেই দূর করা যায়। এ‌টি খুবই কার্যকর একটি পদ্ধতি।

ব্যাবহার প্রণালীঃ মুখের ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর করার এই মিশ্রণটি তৈ‌রি করার জন্য প্রথমে ৩/৪ চামুচ টক দই নিয়ে তার সাথে দেড় চামুচ হলুদ গুঁড়া নি‌য়ে ভালোভাবে মি‌শি‌য়ে এক‌টি মিশ্রন তৈ‌রি করুন। এবার এই মিশ্রন‌টি ভালক‌রে মুখে ম্যাসাজ করে দশ মিনিট লাগিয়ে অপেক্ষা করুন। তারপর প‌রিস্কার পা‌নি দিয়ে ভাল ক‌রে ধুয়ে ফেলুন। ঘরে বসে সময় করে নিয়মিত এই প্যাকটি ব্যবহার করলে আপনার মুখের ব্রণের সমস্ত দাগ মিশে দূর হয়ে যাবে এবং আপনার ত্বক আরও উজ্জ্বল ও সুন্দর হবে।

৫। দারচিনি ও মধুঃ ত্বক থেকে ব্রনের কালো দাগ দূর করতে মধু একটি অ‌তি কার্যকরী উপাদান। এই মধুর সাথে দারচিনি গুঁড়া মিশিয়ে প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর এক ঘন্টা আগে আপনার মুখ ভালো করে ধুয়ে শুধুমাত্র দাগের উপর ১ ঘণ্টা লাগিয়ে অপেক্ষা করুন। তারপর প‌রিস্কার পা‌নি দি‌য়ে ধুয়ে ফেলুন।

যদি কোন প্রবলেম না হয় তাহলে সারারাতও লাগিয়ে রাখতে পারেন। আবার শুধুমাত্র মধু দিয়েও এপ্লাই করতে পা‌রেন। সময় করে এভা‌বে নিয়‌মিত ব্যবহার করলে দেখবেন কিছুদিনের মধ্যেই আপনার মুখের ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর হয়ে ত্বক কত সুন্দর হয়ে গেছে।

৬। এসপিরিন ও মধুঃ এস‌পি‌রিন এ রয়ে‌ছে স্যালিসাইলিক এসিড। যা আপনার মুখের ব্রণের সমস্ত দাগ দূর করার জন্য খুবই কার্যকরী।

ব্যাবহার প্রণালীঃ প্রথমে দুইটি এসপিরিন ট্যাবলেট এর সাথে ২ চামুচ মধু ও আধা চামুচ পানি নিয়ে সবগুলি একত্রে ভালকরে মিশিয়ে এক‌টি ‌মিশ্রন তৈরি করুন। তারপর খুব সাবধানে এ‌টি মু‌খে লাগান তবে খেয়াল রাখতে হবে মিশ্রণটি যেন চো‌খে না যায়। তারপর মিশ্রণটি কিছুক্ষন লাগিয়ে ‌রে‌খে প‌রিস্কার পা‌নি‌ দিএ ধু‌য়ে ফেলুন। এভা‌বে নিয়মিত কিছু‌দিন ব্যবহার কর‌লেই দেখবেন আপনার মুখের ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর হয়ে গেছে।

৭। বেকিংসোডাঃ বে‌কিং সোডায় রয়েছে প্রাকৃ‌তিক ব্লিচ। যা ব্রণের সমস্ত কালো দাগ দূর কর‌তে সাহায্য করে। এ‌টি ব্যাবহারের নিয়ম হল প্রথমে দুই টেবিল চামুচ বেকিং সোডার সাথে সামান্য পানি মিশিয়ে নিতে হবে। তারপর মিশ্রন‌টি হালকা করে আপনার মুখে দুই থেকে তিন মিনিট পর্যন্ত লাগিয়ে রাখুন। তবে খেয়াল রাখতে হবে যেন মিশ্রণটি চো‌খে না যায়। তারপর মিশ্রন‌টি শু‌কি‌য়ে গে‌লে প‌রিস্কার পা‌নি দি‌য়ে ভালকরে সম্পূর্ণ মুখমণ্ডল ধুয়ে ‌ফেলুন।

মুখ ধোয়া হয়ে গেলে সাথে সাথে মু‌খের উপর ময়েশ্চারাইজার ক্রিম অথবা অলিভ অয়েল লাগি‌য়ে নিন। আপনি নিয়মিত এ‌টি সপ্তাহে অন্তত দুদিন ব্যাবহার করুন।

৮। অ্যালভেরাঃ অসংখ্য প্রাকৃ‌তিক ঔষধী গুন সমৃদ্ধ এই অ্যালভেরা। বি‌ভিন্ন রোগ সারাতে এর কোন জু‌ড়ি নেই। মুখের ত্ব‌কের লাবন্যতা ফি‌রি‌য়ে আনা সহ ত্ব‌কের যে কোন ক‌ঠিন দাগ দূর কর‌তে পা‌রে এই অ্যাল‌ভেরা। তাই প্রত্যেকদিন সকালে ও রা‌তে দুইবার করে অ্যালোভেরার জেল মুখে লাগান এবং শুকিয়ে যাবার পর মুখ ভাল করে ধুয়ে ফেলুন।

এভাবে নিয়মিত এক থেকে দুই মাস মুখে অ্যালভেরার জেল ব্যবহার করুন। তারপর যখন খেয়াল করবেন আপনার মুখের ব্রণ ও ব্রণের দাগ চলে গেছে তখন প্রত্যেকদিন একবার সকালে অথবা রাতে শোবার আগে এ‌টি নিয়মিত ব্যবহার করুন। তাহলে ত্বকের অন্যান্য কোন সমস্যা থাকলে সেরে যাবে।

৯। টমেটো ও শসাঃ টমেটো মুখের ব্রণের জন্য খুবই উপকারি। প্রথমে একটি লাল টমেটোর কিছু অংশ নিয়ে তার রস বের করে নিন। তারপর তা এক চামুচ শশার রসের সাথে ভালকরে মিশিয়ে একটি প্যাক তৈরি করে নিন। এখন এই মিশ্রণটি আপনার সারা মুখে লাগান। তারপর শুকিয়ে গেলে ১০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে অন্তত তিন বার এই প্যাকটি মুখে লাগান। এর ফলে মুখের ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর হয়ে সম্পূর্ণরূপে আপনার রুদ্রে পোড়া ত্বক সুন্দর হয়ে ত্বকের উজ্জ্বলতাকে দ্বিগুণ বৃদ্ধি করবে।

১০। লেবুঃ ত্বকের জন্য খুবই উপকারী হল লেবু। লেবুকে প্রাকৃতিক ব্লিচ ও বলা হয়। মুখের ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর করতে লেবু খুবই কার্যকরী একটি ফল।

ব্যাবহার প্রণালীঃ এক চামুচ লেবুর রসের সাথে আধা চামুচ পানি মিশিয়ে একটি তুলার বলের সাহায্যে তা মুখে ৩-৪ মিনিট ঘষুন। আপনার ত্বক যদি সেনসিটিভ স্কিন হয় তাহলে লেবুর মিশ্রনের সাথে গোলাপ জল মিশিয়ে নিতে পারেন। সম্ভব হলে এক চামুচ লেবুর রসের সাথে দুই চামুচ ভিটামিন-ই ক্যাপসুল মিশিয়ে ত্বকে লাগাতে পারেন।

এছাড়া ১ টেবিল চামচ লেবুর রসের সাথে ১ টেবিল চামুচ মধু নিয়ে তার সাথে ১ টেবিল চামুচ আমন্ড তেল এবং ২ টেবিল চামুচ দুধ একসাথে মিশিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করে মুখে লাগান। তারপর শুকিয়ে গেলে ভাল করে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এই নিয়মে প্রতিদিন একবার করে পুরা এক সপ্তাহ এই ফেইস প্যাকটি ব্যবহার করতে পারেন। তবে মুখে ব্রণ থাকা অবস্থায় দুধ ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন।

উপরের সবগুলো উপাদান ত্বকের বা মুখের ব্রণ ও ব্রণের দাগ দূর করতে বেশ কার্যকর ও উপকারী। আপনার ত্বকের ধরন অনুযায়ী যে সমস্ত উপাদান বেশি ভালো তা ব্যবহার করুন। সর্বদা আপনার মূল্যবান ত্বকের যত্ন নবেন। নিয়মিত বেশি করে পানি পান করুন এবং সুস্থ থাকুন।

আপনি ব্রণে কখনও নখ লাগাবেন না অথবা নখ দিয়ে কখনও চাপ দিয়ে কিছু বের করতে যাবেন না এবং চুলকানি আসলেও ব্রণে স্পর্শ করা থেকে নিজেকে বিরত রাখবেন। এছাড়া আপনি যদি ব্রণের প্রতিকারের জন্য কখনও কোন চিকিৎসকের পরামর্শ বা ট্রিটমেন্ট গ্রহণ করে থাকেন বা ব্রণের দাগ দূর করতে কোনও কিছু ব্যবহার করেন তাহলে অবশ্যই হালকা ভাবে ব্যাবহার করতে হবে।

সূর্যের আলো আমাদের ত্বকের ও ব্রণের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। সূর্যের আলোতে ব্রণের দাগ শুকিয়ে ত্বকের উপরে বসে যায়। তাই সূর্যের সংস্পর্শ থেকে সর্বদা নিজেকে দূরে রাখার চেষ্টা করবেন। আর যখনই বাইরে যাবেন তখন মুখে অবশ্যই সানস্ক্রিন ক্রিম লাগিয়ে বের হবেন। এছাড়া মুখের ব্রণ ও ব্রণের দাগ এড়াতে ছাতা, হ্যাট, ওড়না, স্কার্ফ, হিজাব ইত্যাদি দিয়ে নিজের ত্বককে সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে নিজেকে বাঁচিয়ে চলবেন।

প্রাকৃ‌তিক উপা‌য়ে কাল হাত পা ফর্সা ও সুন্দর করার টিপস

1
কাল হাত পা ফর্সা ও সুন্দর
কাল হাত পা ফর্সা ও সুন্দর করার টিপস

প্রাকৃ‌তিক উপা‌য়ে কাল হাত পা ফর্সা ও সুন্দর করার টিপস। আমরা অনেক নারীদের দে‌খি তা‌দের ‌দে‌হের অন্যান্য অংশের তুলনায় তা‌দের হাত ও পা একটু বেশি কালো। কোন মে‌য়ে‌ প্রকৃত ফর্সা হ‌লেও তার হাত পা দে‌খে ম‌নে হ‌বে মে‌য়ে‌টি কাল। তাই মুখ, হাত ও পায়ের রঙের ভিন্নতার কারনে সবাই এটা নি‌য়ে অনেক দুশ্চিন্তা ক‌রে থা‌কেন।

কিন্তু আপনি কি জানেন শুধুমাত্র চেহারার সৌন্দর্যের কারনেই আপনার সৌন্দর্য সম্পুর্নরু‌পে প্রকাশ পায় না। তাই শরীরের সম্পুর্নরু‌পে সৌন্দর্যের প্রকাশ করতে হাত পায়ের সৌন্দ‌র্যেরও বিশেষ ভূমিক র‌য়ে‌ছে। ফলে দেখা গেছে আপনার হাত পা ফর্সা আর সুন্দর না হওয়ায় আপনি অনেক ফ্যাশন করা থেকে নিজেকে বিরত রাখছেন।

অনেক আপুরা আছেন যারা শর্ট হাতা বা হাতা কাটা জামা পড়ার সাহস পাচ্ছেন না অথবা অনেক শখ করে জুতা কিনেছেন কিন্তু পা‌গুলো সুন্দর না হওয়ায় তা পরতে শরম পাচ্ছেন। এর অন্যতম প্রধান কারন হচ্ছে আমরা ঠিকমত আমাদের হাত পায়ের যত্ন নেইনা এবং অনেক বেশি ‌বে‌শি রোদের সংস্পর্শে যাওয়ার কারণে দেহের অন্যান্য অংশের চেয়ে কালো আর বি‌শ্রি হয়ে থাকে।

আর আপনার ফর্সা ও সুন্দর মুখের সাথে সামঞ্জস্য করতে প্রয়োজন ফর্সা ও সুন্দর হাত পা। তাই আসুন জেনে নেই‌ প্রাকৃ‌তিক উপা‌য়ে কাল হাত পা ফর্সা ও সুন্দর করার টিপস।

১. কাঁচা দুধ: প্রাকৃ‌তিক উপা‌য়ে কাল হাত পা ফর্সা ও সুন্দর করার জন্য কাঁচা দুধ খুবই কার্যকরী এক‌টি প্রাকৃ‌তিক উপাদান। কাঁচা দুধে আছে ল্যাকটিক এসিড, যা ত্বককে একদম ভিতর থেকে ফর্সা ও সুন্দর করে। তাই আপনার কাল হাত পা ফর্সা ও সুন্দর রাখ‌তে নিয়‌মিত কাঁচা দুধ ব্যবহার করুন।

ব্যবহার প্রনালী: এ‌টি তৈ‌রি করতে আপনি প্রথমে কিছু নরম তুলা ‌নি‌য়ে বড় ক‌রে বলের মত গোলা বানি‌য়ে নিন। তারপর তুলার গোলা‌টি কাঁচা দুধে ভিজিয়ে হালকা ভাবে আপনার হাত ও পায়ে ঘষিয়ে ঘষিয়ে লাগান। তারপর শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে ভালভা‌বে ধুয়ে ফেলুল। এভা‌বে নিয়‌মিত প্রতিদিন হাত পায়ে কাঁচা দুধ ম্যা‌সেজ করলে খুব কম সময়েই আপনার কাল হাত পা ফর্সা ও সুন্দর হ‌য়ে উঠ‌বে। কাঁচা দুধ ঠো‌টের কাল‌চে দাগ দূর কর‌তেও দারুন কার্যকরী এক‌টি ফর্মুলা।

২. দুধ ও কমলার খোসা: ভিটা‌মিন-সি সমৃদ্ধ কমলার খোসা ত্বকের কালচে ভাব দূর করে এবং ত্বকের ময়লা পরিস্কার করতে সাহায্য ক‌রে। শুকনা কমলার খোসা ত্বকের জন্য খুবই উপকারি। তাই কমলা খাওয়ার পর খোসাগু‌লো ফে‌লে না দি‌য়ে সংরক্ষন করুন।

ব্যবহার প্রনালী: মিশ্রনটি বানাতে প্রথমে কয়েকদিন প্রখর রোদে কমলার খোসাগুলোকে রেখে ভালোভাবে শুকিয়ে নিতে হ‌বে। এভাবে রোদে রাখার পর কমলার খোসাগুলো শুকিয়ে গেলে ভালোভাবে গুড়া করে অথবা পাউডার করে নিয়ে একটি পাত্রে সংরক্ষন করতে হবে। তারপর চার (০৪) টেবিল চামুচ কমলার শুকনা খোসার গুঁড়ো নিয়ে তার সাথে কাঁচা দুধ মিশিয়ে খুব ভালোভাবে এক‌টি মিশ্রন বানিয়ে নিন। এখন এই মিশ্রন‌টি হাতে ও পায়ে ভাল ক‌রে লাগিয়ে নিন এবং লাগানোর ২০ মিনিট প‌রিস্কার পা‌নি‌ দি‌য়ে ধুয়ে ফেলুন। এভা‌বে নিয়‌মিত সপ্তা‌হে তিন দিন ব্যবহার কর‌লে আপনার হাত ও পা থেকে সমস্ত ময়লা দূর করে আপনাকে দিবে ফর্সা ও সুন্দর হাত পা।

কাল হাত পা ফর্সা ও সুন্দর

৩. মধু, ইনো ও সাদা পেস্ট: এই তিন‌টি উপাদান এক‌ত্রে মি‌শি‌য়ে নিয়‌মিত ব্যবহার কর‌তে হ‌বে। যে কোন ব্র্যান্ডের সাদা পেস্ট হলেই হ‌বে। আর ইনো পেটের গ্যাস বা অন্য কোন সমস্যা হলে খাওয়া হয় যা আপনি ঔষধ বা যেকোন মু‌দির দোকানে পাবেন। ইহা আপনার ত্বকের ভিতরে গিয়ে ডেড সেল গুলো মেরে ফেলবে এবং ত্ব‌কে নতুন সেল গজাতে সাহায্য করবে। ইনো আপনার হাত পা‌য়ের ত্বক অনেক উজ্জ্বল ও ফর্সা করে তুলবে। আর লাগবে খাঁ‌টি মধু।

ব্যবহার প্রনালী: মিশ্রন‌টি তৈ‌রি কর‌তে ১ চা চামচ পেস্ট নিয়ে তার ম‌ধ্যে ১ চা চামচ মধু দিয়ে ভালো ভাবে মিশাতে হ‌বে। তারপর মিশ্রন‌টি হ‌য়ে গে‌লে এক প্যাকেট ইনো ‌ঢে‌লে মি‌শি‌য়ে দিবেন । এখন এই তিন‌টি টি উপাদান‌কে এক‌ত্রে ভাল ক‌রে মিশি‌য়ে এক‌টি মিশ্রন তৈ‌রি কর‌তে হ‌বে (ত‌বে ইনোটা যখন পেস্টের মধ্যে দি‌বেন তখন সা‌থে সা‌থে ফেনা তৈ‌রি হ‌ঢে ফুলে উঠতে পা‌রে)। এখন এই মিশ্রন‌টি ত্ব‌কে লাগানোর পূর্বে ভালক‌রে হাত পা পরিষ্কার করে বাতা‌সে শুকিয়ে নিন। তারপর আলতো ক‌রে হাত দিয়ে বা সফট ব্রাশ দিয়ে এ ‌মিশ্রন‌টি আপনার হাত ও পা‌য়ে ভালভা‌বে লাগিয়ে নিন। মিশ্রন‌টি লাগা‌নো শেষ হ‌লে ৫ মি‌নিট অ‌পেক্খা করুন। এরপর ‌মিশ্রন‌টি শুকিয়ে গে‌লে প‌রিস্কার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। ভালো ফলাফল পাওয়ার জন্য এই মিশ্রন‌টি মাসে ৭ বার ব্যবহার করতে পা‌রেন। এই ‌মিশ্র‌নের প্যাকটি আপনার কাল হাত পা ফর্সা ও সুন্দর করতে অনেক বেশি কার্যকর।

৪. টমেটো, চন্দন গুঁড়া ও হলুদ: ট‌মে‌টো‌তে রয়েছে প্রচুর প‌রিমা‌নে লাইকোপেন নামক এক ধর‌নের প্রাকৃ‌তিক উপাদান। এই লাই‌কো‌পেন নামক উপাদান টি ত্বকের সব ধরনের দাগ দূর ক‌রে দেওয়ার পাশাপাশি ত্ব‌কের মৃত কোষগু‌লো‌কেও দূর ক‌রে দেয়।আবার ত্বকের যত্নে হলুদের কোন জুড়ি নেই। ত্বক থেকে বয়সের দাগ, রোদের পোড়া দাগ ও ব্রনের দাগ দূর করে এই হলু্দ। যা যুগ যুগ ধ‌রে রূপচর্চায় ব্যবহার হ‌য়ে আস‌ছে। আর চন্দনের গুঁড়া ত্বকের একেবারে ভেতর থেকে সম্পূর্ণ ময়লা পরিস্কার করে আপনার ত্বককে ফর্সা ও সুন্দর করে তুলবে।

ব্যবহার প্রনালী: প্রথমে ২ টেবিল চামচ টমেটোর রস, ১ ‌টে‌বিল চামচ হলুদের গুঁড়া ও ২ টেবিল চামচ চন্দনের গুঁড়ার সাথে গোলাপ জল মিশিয়ে ঘন ক‌রে এক‌টি মিশ্রন বা‌নি‌য়ে নিন। এখন এই মিশ্রন‌টি হাত ও পায়ে ভাল ক‌রে লাগিয়ে ২০ মিনিট অ‌পেক্খা করুন। তারপর প‌রিস্কার পা‌নি দি‌য়ে ধুয়ে ফেলুন। এভা‌বে নিয়‌মিত এক সপ্তা‌হ এই মিশ্রন‌টি ব্যবহার কর‌লে আপনার হাত ও পা থেকে সমস্ত ময়লা দুর হ‌য়ে আপনি পা‌বেন ফর্সা ও সুন্দর হাত পা।

৫. মধু ও দারচিনি: ধুর গু‌নের কথা কম বেশী আমরা সবাই জা‌নি। ত্বককে অনেক ফর্সা করতে সাহায্য করে এই মধু। কালো হাত পা থেকে মুক্তি পে‌তেও মধু বেশ সহায়ক ভু‌মিকা রা‌খে। তাই মধুর সাথে দারুচিনির গুঁড়া মিশিয়ে কালো হাত পায়ের সমস্যা থেকে সহজেই মুক্তি পাওয়া যায় সহ‌জে।

ব্যবহার প্রনালী: মিশ্রন‌টি তৈরি করতে প্রথমে ২ টে‌বিল চামচ দারচিনির সাথে ২ টেবিল চামচ মধু ভাল ক‌রে মিশিয়ে এক‌টি পেস্ট তৈরি করে নিন। তারপর আপনার কাল হ‌য়ে যাওয়া হাত ও পায়ে ‌মিশ্রন‌টি লাগিয়ে নিন। এভা‌বে মিশ্রন‌টি লা‌গি‌য়ে ১৫-২০ মিনিট পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। তারপর প‌রিস্কার পা‌নি দি‌য়ে ধুয়ে ফেলুন। উপকার পে‌তে এই মিশ্রন‌টি সপ্তাহে তিন বার ব্যবহার করুন। তাহ‌লে আপনি ‌ফি‌রে পাবেন ফর্সা ও সুন্দর হাত পা।

৬. এলোভেরা ও শসা: প্রাকৃ‌তিক বহু ঔষধী গুনাগুন সমৃদ্ধ এই এলোভেরা। স্বাস্থ্য, ত্বক ও চুলের যত্নে বেশ উপকারি এলোভেরার রস বা জেল। এলোভেরার ‌জেল ত্বকের ভিতরের সমস্ত কোষ গুলিকে পরিষ্কার করে ও দাগ দূর করে। আবার শসার রস কালো দাগ দূর করতে ও কাল হাত পা ফর্সা ও সুন্দর করতে বেশ প্রচলিত এক‌টি পদ্ধ‌তি।

ব্যবহার প্রনালী: এটি তৈরি করতে প্রথমে ১ টেবিল চামচ এলোভেরার রস এর সাথে ৩ টেবিল চামচ শসার রস মিশিয়ে নিন। তারপর মিশ্রণটি হাতে ও পায়ে হাত দি‌য়ে ম্যা‌সেজ ক‌রে ক‌রে লাগি‌য়ে নিন। ‌মিশ্রন‌টি লাগানোর পর ২০ মিনিট অ‌পেক্খা করুন। তারপর প‌রিস্কার পা‌নি‌তে ভালক‌রে ধুয়ে ফেলুন। হাতে পায়ের সমস্ত কালো দাগ ও রোদের পোড়া দাগ দূর করতে এটি বেশ কার্যকরী। এভা‌বে টানা এক সপ্তা‌হ এই মিশ্রন‌টি ব্যবহার কর‌লে আপনার হাত ও পা থেকে সমস্ত ময়লা দুর হ‌য়ে আপনি পা‌বেন ফর্সা ও সুন্দর হাত পা।

৭. পাঁকা পেঁপে: হাত পায়ের কালচে ভাব দূর করতে পাঁকা পেঁপে বেশ উপকারী এক‌টি উপাদান। এই পাঁকা পেঁপে ত্ব‌কের রোদে পোড়া ভাব ও হাত পায়ের কালচে দাগ দূর করে।

ব্যবহার প্রনালী: প্রথ‌মে এক‌টি পাঁকা পেঁপে নি‌য়ে ভালো ক‌রে হাত দিয়ে চটকিয়ে ‌পেস্ট বা‌নি‌য়ে নিন। তারপর পেস্ট‌টি হাত ও পায়ে ভালোভাবে ঘষে ঘষে লাগিয়ে দিন। ‌পেস্ট‌টি লাগানোর পর ১০ মিনিট অ‌পেক্খা ক‌রে প‌রিস্কার পা‌নি দি‌য়ে ধুয়ে ফেলুন। এভা‌বে ‌নিয়‌মিত সপ্তা‌হে তিন বার এই মিশ্রন‌টি ব্যবহার কর‌লে আপনার হাত ও পা থেকে সমস্ত ময়লা দূর হ‌য়ে দ্রুত আপনার কাল হাত পা ফর্সা ও সুন্দর হয়ে উঠবে।

৮. বেসন, হলুদ গুড়া ও কাঁচা দুধ: ত্বককে ‌ভেতর থে‌কে পরিস্কার করে ত্বকের লাবণ্যতা ফিরিয়ে আনে বেসন। বেসনের ‌মিশ্রন তৈ‌রি ক‌রে তা নিয়‌মিত ব্যাবহারে আপনি পেতে পারেন সুন্দর ফর্সা হাত পা। আর আপ‌নি ফিরে পাবেন আপনার হারানো লাবণ্যতা।

ব্যবহার প্রনালী: এটি তৈরি করতে প্রথমে ২ টেবিল চামচ বেসন, ১ চা চামচ হলুদের গুঁড়া, ২ টেবিল চামচ কাঁচা দুধ বা গোলাপ জল মিশিয়ে ঘন ক‌রে এক‌টি মিশ্রন তৈরি করুন। এবার মিশ্রন‌টি‌তে কয়েক ফোটা লেবুর রস মি‌শি‌য়ে নিন। তারপর হাত ও পায়ে ভাল ক‌রে প্র‌লেপ লাগিয়ে নিন। মিশ্রন‌টি লাগা‌নো শে‌ষে ১৫ মিনিট অ‌পেক্খার পর ভাল ক‌রে প‌রিস্কার পা‌নি দি‌য়ে ধুয়ে ফেলুন। এটা আপ‌নি সপ্তাহে ২-৩ বার ব্যবহার করলে দ্রুত আপনার কাল হাত পা ফর্সা ও সুন্দর হ‌য়ে উঠ‌বে।

৯. অলিভ অয়েল: আপনার সুন্দর হাত পা ময়লা ও কাল হওয়ার জন্য অন্যতম প্রধান কারণ হচ্ছে ত্বকের শুষ্কতা। ত্বকের কোমলতার জন্য তাই আপনার প্রয়োজন নিয়মিত ত্ব‌কের ময়েশ্চারাইজিং লাগানো। আর এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল বা জলপাই তেলে রয়েছে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন ও অ্যান্টি অক্সিডেন্ট। তাই প্রতিদিন রাতে আপনার কাল হ‌য়ে যাওয়া হাত ও পায়ে যদি অ‌লিভ অ‌য়েল লাগা‌নোর অভ্যাস তৈ‌রি কর‌তে পা‌রেন তাহ‌লে আপনার হাত ও পা আ‌গের চাই‌তে অ‌নেক কোমল, সতেজ ও ফর্সা হয়ে উঠবে।

কাল হাত পা ফর্সা ও সুন্দর
কাল হাত পা ফর্সা ও সুন্দর

হাত পায়ের স‌ঠিক যত্নে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল হাত পা সবসময় পরিষ্কার রাখা। তাই সব সময় আপনার হাত পা নখ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখুন। রান্না বান্নার সময় খেয়াল রাখ‌বেন যা‌তে তে‌লের ছিটা না প‌ড়ে এবং সহ‌জে দাগ প‌ড়ে এমন তরকা‌রি কাটার পর দ্রুত হাত ও নখ ভাল ক‌রে সাবান দি‌য়ে ধু‌য়ে ফেলুন।

রোদ থে‌কে বাঁচ‌তে ছাতা ব্যবহারের অভ্যাস করুন। বাহির থেকে ফিরেই আপনার উ‌চিত হ‌বে সা‌থে সা‌থে হাত মুখ ও পা পরিস্কার ক‌রে ধৌত করা। তাহ‌লে আপনার হাত পায়ে কখনও ময়লা জমে দাগ পড়‌বেনা।

আশাক‌রি উপ‌রের প্রাকৃ‌তিক উপা‌য়ে কাল হাত পা ফর্সা ও সুন্দর করার টিপস গু‌লো আপনার কা‌জে আস‌বে।

বিউ‌টি পার্লা‌রে না গি‌য়ে ঘরে বসে হাত ও পায়ের নখ সুন্দর ও সাদা করার টিপস

0
হাত ও পায়ের নখ
হাত ও পায়ের নখ

বিউটি পার্লারে না গি‌য়ে ঘরে বসে হাত ও পায়ের নখ সাদা করার টিপস। নি‌জে‌কে সুন্দর দেখা‌নোর জন্য আমরা আমা‌দের হাত পা‌য়ে লাল, নীল, হলুদ বা বি‌ভিন্ন কাল‌রের নেইলপা‌লিশ দি‌য়ে রা‌ঙি‌য়ে সুন্দর ক‌রে রাখার চেষ্টা ক‌রি। ‌কেউ আবার নেইলপা‌লিশ ছাড়াই নখ সাদা রাখ‌তে পছন্দ ক‌রি। আমা‌দের নখগু‌লি‌কে এভা‌বে সাজিয়ে গুছিয়ে রাখলে হাত পা কত সুন্দরই না লাগে দেখতে। তাছাড়া হাত পা সুন্দর থাকলে দেকতেও অনেক স্মার্ট লাগে।

আর সুন্দর নখ থাকা মানেই হল হাত, পা দেখ‌তে সুন্দর লাগা। অনেকে আবার হাত পা লক্ষ্য করে দেখে আপনার হাত পা দেকতে কতটা সুন্দর। কিন্তু আপনি কি জানেন ন‌খের ঘোলাটে একটা রং আপনার সুন্দর হাতটাকে অসুন্দর করে দিতে পারে? তখন মন খারাপ হ‌য়ে থা‌কে সারাক্ষণ। আর সবসময় ভা‌বেন কিভা‌বে হাত পা‌য়ের নখগু‌লি‌কে সুন্দর রাখা যায়। তাই আসুন জেনে নেওয়া যাক বিউ‌টি পার্লা‌রে না গি‌য়ে ঘরে বসে হাত ও পায়ের নখ সুন্দর ও সাদা করার টিপস।

১. টুথপেস্ট: আমরা যেভা‌বে দাঁত ব্রাশ ক‌রি ঠিক ওভা‌বে দাঁত ব্রাশ করার মতোই আপনার হাত ও পা‌য়ের নখ প্র‌তি‌দিন সামান্য পেস্ট নি‌য়ে ন‌খের গোড়া থে‌কে মাথার দি‌কে ব্রাশ করুন। নিয়‌মিত কিছুদিন এই পদ্ধতিতে ব্রাশ কর‌লে আপ‌নি পা‌বেন ঝকঝকে সুন্দর নখ। তবে ব্রাশ করার কিছুক্ষণ আগে নখগুলোকে ভিজিয়ে নিবেন।

২. লেবু ও বেসন: প্রথ‌মে একটি পাত্রে একটা আস্ত  লেবুর রস বের করে তার সা‌থে বেসন মি‌শি‌য়ে নিন। এখন এই মিশ্রন‌টি হাত ও পায়ের নখ এর ওপর শুকিয়ে যাওয়া পর্যন্ত লাগিয়ে রাখতে হবে। তারপর শু‌কি‌য়ে গেলে ধু‌য়ে ফেলুন। কিছু‌দিন এভা‌বে নিয়‌মিত কর‌তে থাকুন। দেখ‌বেন আপনার নখ কত সুন্দর সাদা ও প‌রিস্কার হ‌য়ে‌ছে।

৩. ডেনটিউর ক্লিনার: এটা দাঁত পরিষ্কার করার ঔষধ এবং যেকোনো ফা‌র্মে‌সি‌তে এই ট্যাবলেট টি কিনতে পাওয়া যায়। যা হাত পা‌য়ের নখ প‌রিস্কার ও সৌন্দর্য বৃ‌দ্ধি‌তে দারুন কাজ ক‌রে। তাই এর এক‌টি ট্যাবলেট কুসুম গরম পা‌নি‌তে মিশিয়ে তারপর সেই পা‌নি‌তে ৪-৫ মি‌নিট পযায়ক্র‌মে আপনার হাত ও পায়ের নখ গু‌লি ডুবিয়ে রাখুন। তারপর পরিস্কার পানিতে ধুয়ে ফেলুন।

৪. বেস কোট: যারা নিয়‌মিত নেইলপা‌লিশ ব্যবহার কর‌তে পছন্দ ক‌রেন তারা নখের প‌রিস্কার সাদা ভাব ধরে রাখতে চাই‌লে সবসময় নেইলপালিশ লাগানোর পূ‌র্বে বেস কোট লা‌গি‌য়ে নি‌বেন। এতে ক‌রে আপনার নখ ভালো থাকবে। তাই বেস কোটটি সবসময় হাতের কাছে রাখুন।

৫. ‌বে‌কিং পাওডার: হাত ও পায়ের নখ প‌রিস্কার ও সুন্দর কর‌তে বে‌কিং পাওডার ভাল কাজ ক‌রে। তাই প্রথ‌মে একটি বাটিতে ১ চামুচ বেকিং পাউডার ও ১ চামুচ লেবুর রস মি‌শি‌য়ে ভাল ক‌রে মিশ্রন তৈ‌রি ক‌রে নিন। এই দুটি প্রাকৃতিক ব্লিচিং এর মিশ্রন নিখুত ভাবে আপনার নখগু‌লি‌কে ধবধ‌বে সাদা করতে সাহায্য করে। এবার একটি তুলো দি‌য়ে বল বানিয়ে বলটি মিশ্রনের মধ্যে চু‌বি‌য়ে ১০ মিনিটের জন্য আপনার নখ এ এটি প্রয়োগ করে অপেক্ষা করুন। তারপর উষ্ণ জল দিয়ে ভালক‌রে ধুয়ে শুকনা কাপড় দি‌য়ে মু‌ছে ফেলুন আর উপ‌ভোগ করুন আপনার ন‌খের সুন্দর উজ্জ্বলতা।

৬. ময়েশ্চারাইজার: আমরা আমাদের ত্বক সুন্দর পরিস্কার ও ভাল রাখার জন্য সব মৌসু‌মেই ম‌য়েশ্চারাইজার ব্যবহার করে থাকি। তবে ম‌নে রাখ‌বেন আপনার ত্বকের মত হাত ও পায়ের নখ ও সবসময় পরিষ্কার ও পরিচ্ছন্ন করে রাখতে হ‌বে। তাই প‌রিস্কার ও ধবধবে সাদা নখ পেতে নিয়মিত প্র‌তি‌দিন ময়েশ্চারাইজার লাগাতে হবে।

৭. নেইল হোয়াই‌টানিং: নখ ধবধ‌বে সাদা রাখার জন্য আপনার আশেপাশের কস‌মে‌টিকস এর দোকানেই পাওয়া যায় এই নেইল হোয়াইটানিং পেনসিল। অ‌নে‌কে যেটা বিউ‌ট্পিার্লা‌রে গি‌য়ে টাকা খরচ ক‌রে করে থা‌কেন। ত‌বে আপ‌নি চাই‌লে সম্পূর্ণ ম্যানিকিউরের কিট কিনে বাড়িতে ব‌সেই ম্যানিকিউর করতে পারেন। এতে আপনার সময়ও বাঁচবে আবার নখ ভালো থাকবে এবং সুন্দর সাদা হবে।

৮. স্ট্রবেরি এবং বেকিং সোডা: স্ট্রবেরি ফলটি বিভিন্ন খাবাবে ব্যবহার করে খাদ্যের ফ্লেবারকে যেমন বাড়িয়ে দেয় তেমনি এই ফলটি হাত ও পায়ের নখ এর হল‌দে দাগ তুল‌তে ও দাগ দূর কর‌তে দারুন কাজ করে। স্ট্রবেরি এবং বেকিং সোডা মধ্যে নিজেস্ব কিছু ব্লিচিং ক্ষমতা বিদ্যমান র‌য়েছে এবং সেই গুনকে কাজে লাগিয়ে নখের হলুদ দাগ চিরতরে দূর করা সম্ভব। এজন্য ২-৩ টি পাঁকা স্ট্রবেরিকে বে‌টে পেষ্ট ক‌রে নি‌য়ে তার সা‌থে ১ চামচ বেকিং সোডা মি‌শি‌য়ে একটি মিশ্রণ বা‌নি‌য়ে নিন। তারপর এই মিশ্রন‌টি ন‌খের উপর লা‌গি‌য়ে ১০ মিনিটের জন্য রে‌খে দিন। তারপর প‌রিস্কার পা‌নি দিয়ে ভাল ক‌রে ধুয়ে ফেলুন।

হাত ও পায়ের নখ সুন্দর আর সাদা করার টিপস

এভা‌বে অবসর সম‌য়ে ও ছুটির দিনগুলোতে ঘরে বসে হাত ও পায়ের নখ আকর্ষণীয় সুন্দর আর সাদা করার টিপস সমূহ নিয়‌মিত আপ‌নি অনুসরণ করলে দেখবেন প্রাকৃতিক উপায়ে খুব দ্রুত আপনার হাত ও পায়ের নখ অ‌নেক মজবুত সুন্দর সাদা ও উজ্জ্বল হয়ে উঠবে। আর আপ‌নি হ‌য়ে উঠ‌বেন আরও সুন্দর ও আকর্ষনীয়।

মাত্র এক সপ্তাহে ত্বক ফর্সা ও সুন্দর করার টিপস

5
সম্পূর্ণ ঘরোয়া উপা‌য়ে মাত্র এক সপ্তাহে ত্বক ফর্সা ও সুন্দর করার টিপস
সম্পূর্ণ ঘরোয়া ক‌য়েক‌টি যাদুকরী উপা‌য়ে মাত্র এক সপ্তাহে ত্বক ফর্সা ও সুন্দর করার টিপস

সম্পূর্ণ ঘরোয়া ক‌য়েক‌টি যাদুকরী উপা‌য়ে মাত্র এক সপ্তাহে ত্বক ফর্সা ও সুন্দর করার টিপস। বয়স বাড়ার সা‌থে সা‌থে আমা‌দের শরী‌রেও অ‌নেক ধরনের প‌রিবর্তন ঘ‌টে। এ‌খে‌ত্রে ত্ব‌কের স্কি‌নেও ব্যপক প‌রিবর্তন আমরা দেখ‌তে পাই। ‌কিন্তু এই‌ বয়স বে‌ড়ে যাওয়াকে আমরা কেউই ধ‌রে রাখ‌তে পা‌রি না। তাই বয়স যাই হোক না কেন ‌ছে‌লে কিংবা মে‌য়ে প্র‌ত্যে‌কেই চায় সবসময় তা‌দের ত্বক ফর্সা ও সুন্দর থাকুক। তাছাড়া সৌন্দ‌র্যের প্রশংসা শুন‌তে কিন্তু সবাই চায়। প্র‌ত্যে‌কেই চায় সবার সামনে নিজেকে অ‌নেক আকর্ষণীয়ভাবে উপস্থাপন কর‌তে।

আর এজন্য কোন প্রকার যাচাই বাছাই ছাড়া শুধুমাত্র বিজ্ঞাপন দে‌খেই সবাই বিভিন্ন কেমিক্যাল যুক্ত সৌন্দর্যবর্ধক ফেয়ারনেস ক্রিম ব্যবহার ক‌রে থা‌কে। ত‌বে ত্বকের জন্য এসমস্ত কেমিক্যালযুক্ত ফেয়ারনেস ক্রি‌মের ব্যবহার খুবই ক্ষতিকর।

বর্তমা‌নে কর্মব্যস্ততা কিংবা পড়াশুনার চা‌পে এখন আর কেউ ঘ‌রেও ব‌সে থাক‌তে পা‌রে না। তাই অনেক সময় এই ব্যস্ততার কারনে ত্বক ফর্সা ও সুন্দর করার জন্য স‌ঠিক যত্ন নেওয়ার সময় পাওয়া যায় না। ফ‌লে এক‌দি‌কে যেমন কাজের প্রচন্ড চাপ আবার বাইরেও প্রচণ্ড গরম আর ঘামের দুর্গন্ধ। আবার আ‌ছে বৃষ্টি কিংবা বৈরী আবহাওয়া, বায়ু দুষণ ইত্যা‌দি। এরকম প‌রি‌স্থি‌তি‌তে তাই ধি‌রে ধি‌রে হারিয়ে যেতে থাকে আপনার ‌সৌন্দর্য আর ত্বকের লাবণ্য। কিন্তু আমরা চাইলে ঘ‌রে ব‌সেই সম্পূর্ণ ঘ‌রোয়া উপায়ে খুব অল্প সময়ের ম‌ধ্যে ‌কিছু সঠিক পদ্ধতি ব্যবহার করে মাত্র এক সপ্তা‌হে ত্বক ফর্সা ও সুন্দর হয়ে উঠতে পা‌রি।

তাহ‌লে আসুন জেনে নেই সম্পূর্ণ ঘরোয়া ক‌য়েক‌টি যাদুকরী উপায়ে মাত্র এক সপ্তা‌হে ত্বক ফর্সা ও সুন্দর করার টিপস

১। টমেটো ও লেবু: টমেটো টি লাল জীবানু মুক্ত এবং ফ্রেশ হ‌তে হ‌বে। এ‌তে রয়েছে প্রচুর প‌রিমা‌নে লাইকোপেন নামক একটি প্রাকৃ‌তিক রাসায়‌নিক উপাদান। এই লাই‌কো‌পেন নামক উপাদান টি ত্বকের সব ধরনের দাগ দূর ক‌রে দেওয়ার পাশাপাশি ত্ব‌কের মৃত কোষগু‌লো‌কেও দূর ক‌রে দেয়। তাই এই টমে‌টোর ব্যবহার আপনার ত্বক ফর্সা ও সুন্দর আর উজ্জ্বল হয়ে উঠবে তাড়াতা‌ড়ি।

ব্যবহার প্রনালী: প্রথ‌মে এক‌টি ট‌মে‌টো ভাল ক‌রে ধু‌য়ে কে‌টে টুক‌রো ক‌রে নিন। তারপর এক থে‌কে দুই টুকরো টমাটোর সা‌থে দুই চামচ লেবুর রস মিশিয়ে সবগু‌লো‌কে এক‌ত্রে ব্লেন্ডারে ফেলে পেস্ট বানিয়ে এক‌টি মিশ্রন তৈ‌রি করুন। এখন এই মিশ্রনটাকে ভাল করে মুখে লাগিয়ে কমপ‌ক্খে ২০ মিনিট অপেক্ষা করুন। তারপর বিশ মি‌নিট পর সম্পূর্ণ মুখটা‌কে ঠাণ্ডা পানি দিয়ে ভাল করে ধুয়ে ফেলুন।

২. অ্যালভেরা ও বাদাম: অসাধারণ ঔষুধী গু‌নে ভরপুর এই অ্যাল‌ভেরা। ত্ব‌কের কাল‌চে হ‌য়ে যাওয়া দাগ‌কে দূর কর‌ার জন্য এ‌টি খুবই কার্যকরী। এছাড়া নানারকম স্কিন ডিজিজের প্রকোপ কমাতেও ইহা সাহায্য করে। অন্যদিকে, বাদাম গুঁড়ো মুখে জমে থাকা ময়লা এবং ব্ল্যাক হেডস দূর করতে সাহায্য ক‌রে।

ব্যবহার প্রনালী: দুই চামচ অ্যাল‌ভেরার জেল নিয়ে তাতে সামান্য পরিমানে বাদাম গুঁড়ো মিশিয়ে একটা পেস্ট বা মিশ্রন তৈ‌রি করুন। তারপর সেই ‌তৈ‌রি করা মিশ্রনটি ভাল করে মুখে লাগিয়ে ১৫-৩০ মিনিট পর্যন্ত অ‌পেক্খা ক‌রে প‌রিস্কার পা‌নি দি‌য়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। ত‌বে বাদাম না চাই‌লে শুধুমাত্র অ্যাল‌ভেরার জেল ব্যবহার কর‌তে পা‌রেন।

৩. দই, মধু ও লেবু: মধু শরী‌রের ত্বককে এ‌কেবা‌রে ভেতর থেকে সুন্দর করে তুলতে সাহায্য ক‌রে। আর মধুর সা‌থে লেবুর রস এবং দইয়ের সংমিশ্রনে উপস্থিত ভিটামিন-সি আপনার ত্বক ফর্সা ও সুন্দর করে আপনাকে সম্পূর্ণরূ‌পে উজ্জ্বল এবং ফর্সা করে তুলবে। আর আপ‌নি পা‌বেন দি‌প্তি‌ময় উজ্বল ত্বক।

ব্যবহার প্রনালী: প্রথ‌মে এক চামুচ দই‌য়ের সা‌থে অল্প প‌রিমা‌নে মধু এবং লেবুর রস মিশিয়ে একটা পেস্ট বানিয়ে ফেলুন। তারপর চোখ এর দি‌কে খেয়াল রে‌খে সেই পেস্টটা সম্পূর্ণ মু‌খে ম্যা‌সেজ ক‌রে লা‌গি‌য়ে ১০-১৫ মিনিট ধ‌রে অ‌পেক্খা করুন। তারপর সময় ‌শেষ হয়ে গেলে মুখটা প‌রিস্কার পা‌নি‌তে ধুয়ে ফেলুন।

৪. ডিমের গোপন ফেস প্যাক: অনুজ্বল ত্বককে দ্রুত ফর্সা আর সুন্দর করে তুলতে ডিমের যথাযথ ব্যবহার খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভু‌মিকা পালন ক‌রে। ত্ব‌কের প‌রিচর্যায় যুগ যুগ ধ‌রে কাঁচা ডিমের ব্যবহার হ‌য়ে আস‌ছে। তাই যে কোন ত্বকের পরিচর্যায় ডিমকে ব্যবহার কর‌তে ভুল করবেন না।

ব্যবহার প্রনালী: ত্ব‌কের য‌ত্নে এক্ষেত্রে একটা ডিমের কুসুম নিয়ে সে‌টি‌কে ভাল করে ফেটিয়ে নিন। তারপর হাত দি‌য়ে সেটিকে সমস্ত মুখে ভাল করে লাগিয়ে দশ মিনিট পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। দশ মি‌নিট পর প‌রিস্কার ঠাণ্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলতে হবে।

৫. আমের খোসা এবং দুধ: এই গরমে এক‌টি কাঁচা আ‌মের জুস আপনার শরীর‌কে যেমন প্রশা‌ন্তি ও ভিটা‌মিন সি এ‌নে দেয় তেম‌নি ত্ব‌কের য‌ত্নে আ‌মের খোসা‌টিরও র‌য়ে‌ছে অ‌নেক গুন। তাই দুধের সা‌থে আমের খোসা মিশিয়ে ত্বকে লাগালে ত্ব‌কের অ‌নেক উপকার পাওয়া যায়।

ব্যবহার প্রনালী: মিশ্রন‌টি তৈ‌রি কর‌তে প্রথ‌মে এক‌টি কাঁচা আম ভাল ক‌রে ধু‌য়ে খোসা ছা‌ড়ি‌য়ে নি‌তে হ‌বে। তারপর এক গ্লাস অথবা পরিমাণ মতো দুধে অল্প প‌রিমান আমের খোসা মিশিয়ে ভাল করে ব্লেন্ড করে মিশ্রন তৈ‌রি ক‌রে নি‌তে হবে। তারপর তৈ‌রি করা মিশ্রনটি‌কে চো‌খের দি‌কে খেয়াল রে‌খে মুখে এবং গলায় কিছুক্খন লা‌গি‌য়ে রাখুন। প্র‌য়োজ‌নে ‌মিশ্রন‌টি আপনার ঘাড়েও লাগা‌তে পা‌রেন। তারপর মিশ্রন‌টি শু‌কি‌য়ে গে‌লে প‌রিস্কার পা‌নি দিয়ে ব্যবহৃত স্থানসমূহ ভাল ক‌রে ধুয়ে ফেলুন।

৬. কাঁচা হলুদ মধু ও দুধ: কাঁচা হলুদ ত্বককে উজ্জ্বল করতে এক‌টি অত্যন্ত কার্যকরী এক‌টি প্রাকৃ‌তিক উপাদান। এই কাঁচা হলুদের সা‌থে দুধ ও মধুর ব্যবহার আপনার ত্বক ফর্সা ও সুন্দর কর‌বে। আর আপনি হবেন আরও আকর্ষনীয় ও সুন্দর।

ব্যবহার প্রনালী: প্রথ‌মে দেড় ই‌ঞ্চি সাই‌জের একটুকরা কাঁচা হলুদ পি‌শে পেষ্ট ক‌রে তার সা‌থে সামান্য প‌রিমান মধু এবং সমপ‌রিমান গরম দুধ মি‌শি‌য়ে এক সপ্তাহ পান করুন। এছাড়া কাঁচা হলুদ পাতলা ক‌রে বে‌টে গোস‌লের আ‌গে মুখমন্ডল সহ সমস্ত শরী‌রে ভালক‌রে মে‌খে শুকা‌নো পর্যন্ত অ‌পেক্খা করুন। তারপর গোস‌লে গি‌য়ে ভালক‌রে ধু‌য়ে নিন। এভা‌বে এক সপ্তাহ নিয়‌মিত করুন আর উপ‌ভোগ করুন দাগহীন উজ্জ্বল সুন্দর ত্বক।

৭. লেবুর রস ও চিনি: উজ্জল আর ফর্সা ত্বক পাওয়ার জন্য এই পদ্ধ‌তিটি দারুন কাজ ক‌রে। আর সহ‌জে এটা ঘ‌রে ব‌সেই ক‌রে ফেলা যায়।

ব্যবহার প্রনালী: প্রথ‌মে একটি পা‌ত্রে লেবু থে‌কে সম্পূর্ণ রস চি‌পে বের করে নিন। তারপর লেবুর র‌সের সা‌থে ১ চামচ চিনি ভাল ক‌রে মিশিয়ে নিন। এবার এই মিশ্রনটি আপনার হা‌তে, আঙ্গু‌লে, পা‌য়ে ও মু‌খে ভাল ক‌রে ঘ‌ষে ঘ‌ষে ত্ব‌কের সা‌থে এ‌কেবা‌রে মি‌শি‌য়ে শু‌কি‌য়ে ফেলুন অথবা ত্ব‌কের সা‌থে মি‌লি‌য়ে যাওয়া পর্যন্ত অ‌পেক্খা করুন। তারপর ব্যবহৃত স্থানসমূহ প‌রিস্কার ঠাণ্ড পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

৮. গোলাপজল ও দুধ: ‌যে কোন অনুষ্ঠা‌নে কিংবা রান্নায় গোলাপজল এক‌টি অতিপ্র‌য়োজনীয় সুগ‌ন্ধি উপাদান। এই গোলাপজলে এমন কিছু উপাদান বিদ্বমান রয়েছে যা ত্বক‌কে একদম ভিতর থেকে পরিষ্কার করে। আর স্কিন‌কে ক‌রে সুন্দর এবং তুলতুলে নরম।

ব্যবহার প্রনালী: প্রথ‌মে গোলাপজল এবং কাঁচা দুধ সমপরিমাণে নি‌য়ে এক‌ত্রে মিশিয়ে বা‌নি‌য়ে নিতে হ‌বে। তারপর রাতে শুতে যাওয়ার আগে সেই মিশ্রনটি ভালভা‌বে মুখে ও হা‌তের কনুই পর্যন্ত লাগিয়ে ফেলুন। ‌মিশ্রন‌টি শু‌কি‌য়ে গে‌লে শু‌য়ে পড়ুন এবং সকালে ঘুম থে‌কে উ‌ঠে ভালক‌রে ধুয়ে ফেলুন। এই পদ্ধ‌তিটা এতটাই কার্যকরী যে আপ‌নি মাত্র তিন দিন ব্যবহার করলেই দেখবেন আপনার ত্বক ফর্সা ও সুন্দর আর উজ্জ্বল হয়েছে কতটা।

৯. দুধ ও কলা: আমরা প্র‌তি‌দি‌নের খাবা‌রের তা‌লিকায় দুধ ও কলা যেমন রা‌খি ‌ঠিক তেম‌নি অল্প সময়ে উজ্জ্বল ত্ব‌কের জন্য দুধ ও কলারও কোন বিকল্প নেই।

ব্যবহার প্রনালী: এ‌টি করার জন্য প্রথ‌মে একটা কলাকে ভালক‌রে প‌রিস্কার হা‌তে চোটকি‌য়ে নিন। তারপর চটকান কলার সা‌থে পরিমাণ মতো দুধ মিশিয়ে এক‌টি মিশ্রন বা পেষ্ট তৈ‌রি করুন। আর মিশ্রন‌টি তৈ‌রির সময় খেয়াল রাখবেন যেন মিশ্রন‌টি ভালভা‌বে মিহি হয়ে যায়। এখন এই মিশ্রন‌টি ভালক‌রে মুখে লাগান এবং মিশ্রন‌টি ত্ব‌কে শু‌কি‌য়ে গে‌লে প‌রিস্কার পা‌নি‌ দি‌য়ে ধু‌য়ে ফেলুন।

১০. ডাবের পানি: এই গর‌মে শরী‌রের জন্য এক গ্লাস ক‌চি ডা‌বের পা‌নি যেমন উপকারী তেম‌নি ত্বকের কাল‌চে দাগ দূর কর‌তে ও ত্বক‌কে সুন্দর করে তুলতেও ডাবের পানির জু‌ড়ি নেই। তাই যুগ যুগ ধ‌রে রমনীরা ঘ‌রোয়াভা‌বে ত্ব‌কের য‌ত্নে এই ডা‌বের পা‌নি ব্যবহার ক‌রে আস‌ছেন।

ব্যবহার প্রনালী: উপকার পাবার জন্য প্র‌তি‌দিন সকা‌লে ও রা‌তে অন্তত দিনে দুবার ডাবের পানি দিয়ে হাত ও মুখ ধোয়ার চেষ্টা করুন। তাহলে দ্রুত আপনার ত্বকের কাল‌চে দাগ উ‌ঠে যা‌বে। আর আপ‌নি পা‌বেন মসৃন, ফর্সা ও সুন্দর এক‌টি উজ্জ্বল ত্বক।

এই ঘ‌রোয়া পদ্ধ‌তিগু‌লো একদম সহজ। চাই‌লে অল্প একটু সময় নি‌য়ে যে কোন বয়‌সের নারী পুরুষ এ পদ্ধ‌তিগু‌লো অনুসরণ ক‌রে মাত্র এক সপ্তা‌হে ত্বক ফর্সা ও সুন্দর ক‌রে তুল‌তে পা‌রেন।

POPULAR POSTS

MY FAVORITES

I'M SOCIAL

21,374ভক্ত সমূহপছন্দ
0অনুসরণকারীগণঅনুসরণ
2,506অনুসরণকারীগণঅনুসরণ
0সাবস্ক্রাইবারগণসাবস্ক্রাইব
error: Content is protected !!