বোকা মানুষ চেনার উপায় কি ? একজন বোকা মানুষ চেনার ১২টি উপায়।

118
বোকা মানুষ চেনার উপায়

বোকা মানুষ চেনার উপায় কি ? কিভাবে খুব সহজেই আপনি একজন বোকা মানুষকে Identify করতে পারবেন। আপনি কি একবারও ভেবে দেখেছেন আপনি বোকা নাতো ? অন্যেরা আপনাকে বোকা ভাবছেনাত ? এমনকি এটা মনে হয় যে আপনি নিজেকে অনেক বুদ্ধিমান আর চালাক ভাবেন ?

আসলে বোকা লোকের কিছু সংজ্ঞা আছে। কিছু লক্ষণ আছে। যা দেখলে মানুষ সহজেই বুঝতে পারে যে, সেই মেয়েটি বা ছেলেটির কতটা বোকা। তাই একবার ভাবুনতো ? এগুলো আপনার নিজের মধ্যে নেইতো ? আপনার Personality কে অন্যেরা কিভাবে দেখছে ? একবার ভেবে দেখেছেন কখনও ?

শুনতে অবাক মনে হলেও প্রকৃতপক্ষে এটাই সত্য যে, এমন কিছু আচরণ আমরা অনিচ্ছাকৃত ভাবেই ভুল করে থাকি। যেগুলো আমাদেরকে অন্যের কাছে বোকা প্রমাণ করে। সেই ভুলগুলিই বাকি কি ? চলুন তাহলে জেনে নেই এমন বোকা মানুষ চেনার উপায় কি কি।

কিভাবে এমন বোকা বা সরল মানুষদের আপনি কিভাবে চিনতে পারবেন। অথবা নিজে কিভাবে বুঝতে পারবেন আপনি কতটা বোকা স্বভাবের মানুষ। আপনার প্রিয়জনরা আপনাকে কিভাবে মূল্যায়ন করছে। তাই এখানে একজন বোকা স্বভাবের মানুষ কি কি ভুল করে থাকে। একজন বোকা মানুষ চেনার উপায় সম্পর্কিত ১২টি বিষয় নিয়ে নিচে আলোচনা করা হলো।

১। চট করে রেগে যাওয়া (Getting angry): কোন কিছু বলার বা করার আগে একজন জ্ঞানী ব্যক্তি দেখবেন কিছুটা সময় নেয়। আসলে ভাবনা চিন্তার জন্য তিনি সেই সময়টা নেন। দেখা গেল কেউ কোন কিছু না শুনেই বা না ভেবেই চট করে রেগে যায়। এটা কিন্তু মোটেই বুদ্ধিমান প্রমাণ করে না।

যারা বিচক্ষণ হয়, যারা জ্ঞানী হয় তারা কিন্তু চট করে কখনো রেগে যায় না। ঝগড়া শুরু করে দেয় না। হঠাৎ করে লড়াই করতে উদ্যত হয়ে যান না। তাই এমন কিছু কাজ হঠাৎ করেই করে বসাই হলো একজন বোকা মানুষের লক্ষণ।

এই যে না শুনেই রিঅ্যাক্ট করা, পুরো কথা না শুনেই শুধুমাত্র একটা লাইন শুনেই যদি আপনি React করে বসেন তাহলে এটা হল একটা বোকামির পরিচয়। আগে আপনাকে সম্পূর্ণ কথাটুকুন ভালো করে শুনে নিতে হবে। তিনি কি বলছেন বা কি বুঝাতে চাইছেন সেটা শুনে তারপর রেসপন্ড করুন।

অর্থাৎ আপনাকে React না করে Respond করতে হবে। হঠাৎ করেই React করার মাধ্যমে আমরা নিজেদেরকে বোকা প্রমাণ করছি। এই Respond আর React করার মধ্যে কিন্তু কিছুটা পার্থক্য আছে। যেটা একজন বোকা ব্যক্তি বুঝতে পারে না।

কারণ React করতে কোন ভাবনা চিন্তার দরকার হয়না, সময়ের দরকার পড়ে না। একটা কথা পুরোটা না শুনেই আপনি চট করে সিদ্ধান্তটা জানিয়ে দিলেন। কিংবা আপনি হয়তো রেগে ছিলেন তাই হঠাৎ করেই দুটো বাজে কথাও বলে দিলেন।

কিন্তু যারা Respond করেন তারা React করার আগে বিষয়টা ভালো করে বোঝার চেষ্টা করে, সময় নেয়। কথার উত্তর দেয়ার আগে তাই যদি আপনি নিজেকে বিচক্ষণ ও বুদ্ধিমান প্রমাণ করতে চান। তাহলে Respond করার চেষ্টা করুন। অর্থাৎ Think before you act.

২। অহংকার বোধ (Feeling arrogant): যারা নিজের ব্যাপারে প্রচন্ড অহংকার বোধ করে তারা বোকা ছাড়া আর কিছুই হতে পারে না। আসলে অহংকারটা কেন আসবে ? কিসের ভিত্তিতে আসবে ? সেটা আপনাকে বুঝতে হবে।

আপনি যত বড়ই ক্ষমতাবান বা ধনী ব্যক্তি হন না কেন আপনাকে অহংকার করা থেকে দূরে থাকতে হবে। কারণ অহংকার কারীকে কেউ পছন্দ করে না বরং ভয় পায়। আপনাকে মনে রাখতে হবে যে, আপনি যেই বিষয়গুলো নিয়ে অহংকার করছেন সেগুলো কিন্তু চিরস্থায়ী নয়।

এগুলো ক্ষণিকের জন্য আপনার সুখ দিতে পারে। তাই অহংকার থেকে দূরে থাকাই হলো বুদ্ধিমানের কাজ। মনের মধ্যে সর্বদা কৃতজ্ঞতাবোধ রাখতে পারলে অহংকার থেকে দূরে থাকা যায়। যদি মনে করেন কেউ অহংকারে ভুগছেন তাহলে তাদের থেকে দূরে থাকুন অথবা সম্ভব হলে তাকে পরিবর্তন করে দেয়ার চেষ্টা করতে পারেন।

৩। অপ্রয়োজনীয় ব্যয় (Unnecessary expenses): একজন বুদ্ধিমান বা চালাক মানুষকে খেয়াল করলে দেখবেন তিনি সব সময় টাকা হিসেব করেই খরচ করেন। তাইবলে এখানে কৃপণতার কথা বলা হচ্ছে না। বলা হচ্ছে যারা বিচক্ষণ ব্যক্তি।

বিচক্ষণতার সাথে অর্থ ব্যয় করা হলো এক ধরনের স্কিল। আপনার যেই প্রয়োজনীয়তাটা দরকার সেটার পিছনে আপনি ব্যয় করুন। কিন্তু বেহিসেবির মতো টাকা খরচ করা যাবে না। এই মুহূর্তে আপনার কোন জিনিসটা বেশি প্রয়োজন সেটা আপনাকে বুদ্ধিমত্তার সাথে খুঁজে করতে হবে।

এখানে আপনাকে ছোট্ট একটি পার্থক্য বুঝতে হবে যে, আপনার দরকার কোন জায়গাটায়। মানে Necessity ও luxury এর মধ্যে পার্থক্যটা আপনাকে বুঝতে হবে। যদি জিনিসটা আপনার একান্তই প্রয়োজন হয় তাহলে টাকা খরচ করবেন। আর আপনি যদি আপনার প্রয়োজনীয়তাকে প্রাধান্য না দিয়ে আপনি যদি luxury ‘র দিকে ছুটতে থাকেন তাহলে বুঝতে হবে আপনি বেহিসাবি খরচ করে ফেলছেন।

অর্থাৎ টাকাটা আপনি সঠিক জায়গায় ব্যয় করলেন না। এটা হল চরম একটা বোকামি। মানে আপনাকে প্রথমে সিদ্ধান্ত নিতে হবে কোনটা আপনার করা দরকার। আপনার প্রয়োজন মেটানোর পর আপনি luxury’র দিকে ছুটতে পারেন। luxury টা হল আলাদা একটি অপশন।

৪। ভুলের পুনরাবৃত্তি (Repeat mistakes): দেখবেন আমাদের সমাজে কিছু মানুষ আছে যারা বারবার একই ভুল করে চলেছে। তিনি অতীতের ভুল থেকে কোন শিক্ষা নেন নি। তাহলে বুঝতে হবে তিনি এক নম্বরের বোকা একজন ব্যক্তি। তিনি বুদ্ধিমান নন।

কথায় আছে নেড়া নাকি বেল তলায় একবারই যায়। অথচ ঐ ব্যক্তিটি বারংবার বেল তলায় গেছেন। এই ধরনের বোকা মানুষদের থেকে আমাদের দূরে থাকা উচিত। কারণ হলো, এদেরকে আপনি যতই বের করে আনার চেষ্টা করেন না কেন তারা ততোই ভুল পথে যায়। কারণ বোকারা একটা ভুল করে আরেকবার সঠিক হবে ভেবে পুনরায় আরেকটা ভুল সিদ্ধান্ত নেয়।

এমন কোনো মানুষ যে কিনা তার অতীত ইতিহাস থেকে শিক্ষা নেয় না। যে কিনা অতীতে যেটা হয়ে গেছে সেখান থেকে কোনো experience নেয়ার চেষ্টা করে না। সে বোকা ছাড়া আর কিছুই না। এরকম কিছু ঘটনা অহরহ আমাদের জীবনে ঘটেছে এবং ঘটছে। তাই এসব দেখে আপনাকে শিক্ষা নিতে হবে। যদি পারেন তাহলে নির্দ্বিধায় বলা যায় আপনি বুদ্ধিমান।

৫। কম কাজেই সুখি ভাবা (Feeling happy at the little working): আমাদের সমাজে কিছু মানুষ আছে যারা কম হার্ডওয়ার্ক করেই একটু কম কাজ করেই নিজেদেরকে প্রচন্ড সুখী মনে করেন। যেটুকু ইনকাম করেন এর থেকে আরেকটু ইনকাম বাড়ানোর স্বপ্ন এদের মধ্যে নেই।

যে কাজটা বর্তমানে করছেন সেই কাজটা নিয়ে সন্তুষ্ট থাকছেন। এদের মধ্যে ভবিষ্যতের স্বপ্ন পূরণের কোন ইচ্ছা দেখা যায় না। তাদের কোনো Ambitions নেই, কোন Achievements এর ইচ্ছে নেই। মানে একটি জায়গায় এরা সবসময় ফিক্সড থাকে। কারণ এরা হচ্ছে সমাজের ও পরিবারের অলস ধরনের মানুষ।

এই মানুষগুলোর সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার কোন ভাবনা নেই। এই ধরনের মানুষেরা সত্যিকার অর্থে বোকা মানুষ। এর কারণ একটাই তা হল এদের মধ্যে ভবিষ্যতের স্বপ্ন পূরণের কোন ইচ্ছে নেই, কোন স্বাদ নেই। জীবনটাকে সুন্দর করে বাঁচার কোনো ইচ্ছে নেই।

এজন্য এই ধরনের মানুষের সাথে যদি আপনি বেশি মেলামেশা করেন, বেশি অবস্থান করেন। তাহলে ধীরে ধীরে আপনিও Demotivated হয়ে যাবেন। মানে তাদের আচরণের প্রভাব আপনার মধ্যেও পড়বে। আপনার নিজের ভেতরে থাকা Ambitions গুলো দেখবেন ধীরে ধীরে আপনার ভেতর থেকে হারিয়ে যাবে।

৬। অন্যকে ইমপ্রেস (Impress to others): দেখবেন এমন কিছু কিছু মানুষ আমাদের আশেপাশেই আছে। যারা অন্যকে ইমপ্রেস করতে গিয়ে নিজেকে বোকা প্রমাণ করে। কিভাবে প্রমাণ করে ? বেশি কথা বলে বোকা প্রমাণ করে। মানে তার কাছে কেউ জানতে না চাইলেও সে প্রচণ্ড রকম ভাবে কথা বলেই যাচ্ছে আর খুব হাসছে।

এই মানুষগুলোর কথা শুনলে দেখবেন নিজেরা ইমপ্রেস না হয়ে এক ধরনের বোরিং লাগে। তাই অন্যকে ইমপ্রেস করতে গিয়ে এই বোকামিটা করা যাবেনা। তাহলে সবার সামনে আপনি নিজেই বোকা মানুষ প্রমাণিত হবেন। সবাই আপনার আচরণ দেখে হাসাহাসি করবে। এটাও একজন বোকা মানুষ চেনার উপায়।

৭। কারো নাম ভুলে যাওয়া (Forgeting someone’s name): অনেক সময় দেখা যায় খুব সুন্দর একটা মুহূর্ত নিয়ে কথা হচ্ছে দুজনের মধ্যে। তখন হঠাৎ করেই দেখা গেল আপনি ওই মানুষটার নামটাই ভুলে গেছেন। তারপর যখন কোন ভাবেই তার নামটা মনে করতে পারছেন না। অনেকের মধ্যেই এই আচরণটা দেখা যায়।

তখন কিন্তু অনেকেই সাথে সাথে জিজ্ঞাসা করে বসেন আপনার নামটা যেন কি বলেছিলেন সেটা ভুলে গেছি। Please আপনার নামটা কি আরেকবার বলবেন ? তখন কিন্তু আপনার সামনে থাকা ব্যক্তিটি কিছুটা হলেও আপনার উপর মনটা খারাপ লাগবে। আপনার উপর ওই মুহূর্তে যে ফিলিংসটা নিয়ে সে কথা বলছিল সেটা কিন্তু তাৎক্ষণিক ভাবে কমে যাবে।

তিনি আরও এটাও ভাববেন যে, আপনি যার সাথে কথা বলছেন তাকে আপনি গুরুত্বপূর্ণ মনে করছেন না। তার প্রতি আপনার ততটা ইন্টারেস্ট নেই। তাই এরকম নাম ভুলে যাওয়া হল এক ধরনের বোকামি। শুধু বোকামিই নয়। তার সাথে সাথে আপনার পার্সোনালিটিটাও নিচে নেমে যায়। সুতরাং কারো সাথে কথা বলার আগে তার নামটা অবশ্যই মনে রাখতে হবে।

৮। ভুলভাল জোকস উপস্থাপন (Presenting wrong jokes): আমাদের মধ্যে অনেককেই দেখা যায় তাদের কথা বলার স্টাইল সুন্দর। তিনি অনেক মজা করে, নানারকম অঙ্গভঙ্গি করে, কথার ফাঁকে ফাঁকে জোকস বলে কথার পরিবেশটাকে অনেক সুন্দর করে তুলেন।

আর অন্যদিকে আপনি যদি এরকম করে কখনও কনভারসেশনটাকে ইন্টারেস্টিং করতে গিয়ে, একটুখানি ফানি করতে গিয়ে অথবা কাউকে ইমপ্রেস করতে গিয়ে কথার মাঝে দেখা গেল মুখ ফসকে এমন কোন উদাহরন বা জোকস বলে বসলেন যেটা কাউকে হাসাতেই পারল না। কারো মনে আনন্দ দিতে পারল না। কেউ কেউ বিরক্ত বোধও করে বসলো।

তখন কিন্তু এটা স্রেফ একটা বোকামি ছাড়া আর কিছুই না। ফলে তখন নিজেরাই নিজেদের কাছে বোকা হয়ে যাই। তাই যে কোনো জায়গায় যে কোন কনভারসেশন শুরুর আগে সেখানকার পরিবেশ পরিস্থিতি, সিনিয়র জুনিয়র অর্থাৎ স্থান কাল পাত্র বুঝে কথা বলাটা বুদ্ধিমানের কাজ।

৯। কথার টপিক না জেনে কথা বলতে যাওয়া (Going to talk without knowing the topic): আমরা যখন কারো সাথে কথা বলতে যাই। হোক সেটা আপনার ঘরে কিংবা বাইরে। সেই বিষয়টা সম্পর্কে আপনার পরিষ্কার কোন ধারণাই নেই। সেই জায়গায় কথা বলতে গিয়ে আমরা নিজেদেরকে বোকা প্রমাণ করে ফেলি। তাই Without have a clear Ideas কখনো কথা বলতে যাওয়া যাবে না।

ধরুন আপনাকে কেউ কোন বিষয়ে জানতে চাইলো। তখন আপনার যদি সেই বিষয়টি সম্পর্কে ধারনাই না থাকে তাহলে বলতে পারেন আপনি বিষয়টি সম্পর্কে ক্লিয়ার নন। আর তা না করে যদি কথা বলতে শুরু করেন তাহলে দেখা গেলো আপনি কিছুদুর গিয়েই আপনাকে থেমে যেতে হতে পারে।

কারণ আপনি নিজেই ক্লিয়ার নন। তখন প্রশ্নকর্তা আপনাকে বলতে বলে বসতে পারেন যে, তাহলে তুমি বা আপনি কেন বলতে গেলেন। তখন কিন্তু আপনাকে অনেক লজ্জায় পড়তে হবে। এটাও একজন বোকা মানুষ চেনার উপায়।

১০। অনবরত কথা বলা (Constantly talking): অনেকে দেখবেন অনবরত কথা বলতেই থাকেন। আপনার ফ্রেন্ড সার্কেলের মধ্যে কিংবা আপনার ফ্যামিলি মেম্বারদের মধ্যেও একজন থাকবেই এরকম। দেখবেন তারা যখন কথা বলা শুরু করে তখন কাউকেই আর কথা বলার সুযোগ দেয় না। আমরা ঠিক এই জায়গায় গিয়ে নিজেদেরকে বোকা প্রমাণ করি।

কারণ আমরা যখন কারো সাথে কমিউনিকেশন করছি বা কনভারসেশন করছি। সেটা কিন্তু কখনো একতরফা ভাবে হয় না। হতে পারে না। আমি যখন কথা বলছি তখন অন্যকেউ কথা বলার সুযোগ দেয়া দরকার। আমাদের কথার বিষয়বস্তু নিয়ে সকলেই কি ভাবছে তাই অন্যকেউ কথা বলার সুযোগ আপনাকে দিতে হবে। তাই ননস্টপ কথা বলা একজন বোকা মানুষের লক্ষণ।

১১। অপ্রয়োজনীয় কথা না বলা বা অধিক ইনফরমেশন দিয়ে কথা বলা এড়িয়ে চলা (Avoid talking unnecessarily or talking with too much information): এই বিষয়টি একটি চাকরির ইন্টারভিউর মাধ্যমে বোঝাতে পারলে সহজে বুঝতে পারবেন। ধরুন, আপনি একটি পোষ্টের জন্য কোন একটা ইন্টারভিউতে উপস্থিত হয়েছেন। তখন আপনি কি করবেন ? আপনার কি করা উচিত ? তখন আপনাকে যেই প্রশ্নটা করা হবে আপনি ঠিক সে প্রশ্নটিরই উত্তর দিবেন। সেই প্রশ্নের বিস্তারিত বলতে যাবেন না। সরাসরি টু দ্যা পয়েন্টে কথা বলবেন।

ইন্টারভিউতে আমরা যত ডিটেলস এ কথা বলব। আমাদেরকে না জিজ্ঞাসা করা সত্ত্বেও একটার পর একটা Informations শেয়ার করতে থাকব। ততই দেখবেন আপনাকে Cross question করা হবে। এর ফলে আমরা কিন্তু নিজেদেরকে বোকা প্রমাণ করি। আর নিজেদের বিপদ নিজেই ডেকে নিয়ে আসি। তাই সবসময় টু দ্যা পয়েন্টে কথা বলতে চেষ্টা করুন।

এখন এই বিষয়টা আপনি আপনার বাস্তব জীবনে নিয়ে আসুন। আপনি যখন কাউকে In details এ কোন কথা বলি। কোন কথা জিজ্ঞাসা করা সত্তেও প্রচন্ড ইনফরমেশন শেয়ার করতে থাকবেন। তখন কিন্তু নিজের অজান্তেই বোকামি করে ফেলছেন। নিজেদের বিপদ নিজেই ডেকে আনছেন।

কিভাবে আনছেন ? ধরুন, আপনি তার সাথে আপনার নিজের বাড়ি-ঘর, সহায়-সম্পত্তি সম্পর্কে, আত্মীয়-স্বজন, নিজের অতীত বর্তমান লাইফ সম্পর্কে, জীবনে ঘটে যাওয়া কোন গোপন ঘটনা ইত্যাদি নিজেদের নানা দিক সম্পর্কে অতিরিক্ত Informations শেয়ার করতে থাকেন। মানে তাকে এতটাই বিশ্বাস করলেন যে, তার কাছে সবই শেয়ার করে দিলেন।

এই যে আপনি আপনার সমস্ত ইনফরমেশনগুলো শেয়ার করছেন যার কাছে তিনি হয়তো এখন আপনার শুভাকাঙ্ক্ষী, এখন আপনার বন্ধু। আপনি কিন্তু জানেন না কে আপনার প্রকৃত বন্ধু। কে আপনার প্রকৃত শত্রু হতে পারে। তারপরও আপনি তার সাথে শেয়ার করছেন। সে ক্ষেত্রে কিন্তু আপনি নিজের বিপদ ডেকে আনছেন। নিজেকে অনেক বোকা প্রমান করলেন। আপনি যার কাছে এগুলো শেয়ার করছেন সে হয়তো দেখা গেল অন্য কোন মানুষের কাছে আপনার কথাগুলো শেয়ার করছে অথবা অন্য রকম ভাবেও শেয়ার করতে পারে।

এটা করার ফলে আপনার Reputation নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। মনে রাখবেন, একজন চালাক বা বুদ্ধিমান ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন ব্যক্তি সব সময় নিজের Respect নিজের Reputation বজায় রেখে চলেন। তাই বলছি অতিরিক্ত কথা না বলা। আজেবাজে কথা কম বলা বুদ্ধিমানের কাজ।

১২। নিজেকে বুদ্ধিমান ভাবা ও কর্তৃত্ব দেখানো (Thinking of yourself as intelligent and showing authority): দেখবেন কিছু মানুষ আছে যারা নিজেদেরকে খুব বুদ্ধিমান মনে করেন। মনে করেন তিনি যেটা বুঝেন সেটাই সঠিক, তার সিদ্ধান্তটাই সঠিক। অন্যদের মতামত নেয়ার কোন প্রয়োজন তারা মনে করে না। আবার দেখবেন কোথাও গেলে নিজের প্রসংসা নিজেই করছে যে, তিনি এটা করেছেন, ওটা করেছেন। তিনি না থাকলে আর কেউ এটা করতেই পারতনা ইত্যাদি।

আমাদের Friend circle বা পরিবারের মধ্যেই দেখবেন কেউ না কেউ এরকম আছে। এই মানুষগুলো হল এক ধরনের বোকা মানুষ। যারা অন্যদের মতামতকে প্রাধান্য দেয়না, অন্যদের মতামত নেয়ার প্রয়োজন মনে করে না, নিজের প্রসংসা নিজেই করে বেড়ায় তারা বোকা মানুষ ছাড়া কিছুই হতে পারে না। 

পরিশেষেঃ সুতরাং আপনি নিশ্চয়ই বুঝতে পেরেছেন যে, যে কোন কমিউনিকেশন বা যে কোন পরিস্থিতিতে কোন ভুলগুলো আপনাকে বোকা মানুষ বানিয়ে দেয়। যদি নিজেকে Wise Person প্রমাণ করতে হয় যদি নিজের Personality টাকে ধরে রাখতে হয় যদি নিজে As a good man নিজেকে প্রমাণ করতে চান। তাহলে কথা কম বলতে চেষ্টা করুন। ভেতরে একটা গাম্ভীর্যতা রাখুন। সর্বদা সদালাপী ও হাস্যজ্জল থাকতে হবে।

অন্যের কথা বেশী শুনতে চেষ্টা করতে হবে এবং রেসপন্ড করতে হবে। আশা করি আপনি এই সমস্ত বোকা মানুষ চেনার উপায় সমূহ মাথায় রাখবেন। তাছাড়া আমরা কিছু গুরুত্বপূর্ণ সাইকোলজিক্যাল বিষয়গুলো সম্পর্কে জানলাম যেগুলো আমাদেরকে সর্বদা অন্যদের সামনে বোকা প্রমাণ করছে।

পূর্ববর্তী আর্টিকেলএলোভেরা দিয়ে রূপচর্চা করার টিপস। পার্লারের ফেসিয়াল করুন ঘরে বসে
পরবর্তী আর্টিকেলইমপ্রেস করার উপায় কি ? প্রথম দেখায় কাউকে ইম্প্রেস করবেন কিভাবে

একটি মন্তব্য করুন

এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন
অনুগ্রহপূর্বক আপনার নাম লিখুন