কালো চেহারা ফর্সা করুন মাত্র এক সপ্তাহে

93
কালো চেহারা ফর্সা
Google search engine

কালো চেহারা ফর্সা করুন মাত্র এক সপ্তাহে। সুন্দর ত্বক কে না চায়। আর সুন্দর ত্বক মানেইত হল সুন্দর একটা মুখ বা চেহারা। আর সুন্দর মুখ মানেই হল আকর্ষণ। যা নারী পুরুষ সকলেই কামনা করে। তবে মানুষ কিন্তু সুন্দরের পূজারী। সুন্দরকে ভালবাসে। যার মুখ যত সুন্দর দেখতে থাকে সবাই ততই পছন্দ করে।

বিশেষ করে যাদের ত্বক কালো তাদেরত টেনশনের কোন শেষ নাই। আবার এমন অনেকে আছেন যাদের ত্বক আগে ভাল ছিল কিন্তু বিভিন্ন কারণে সেটা নষ্ট হয়ে গেছে বা কালো হয়ে গেছে। কোনভাবেই পূর্বের চেহারায় ফিরতে পারছেন না। তাদের জন্য এখানে যে টিপসটি আলোচনা করা হয়েছে সেটা জাদুর মত কাজ করবে আশাকরি।

মাত্র এক সপ্তাহ আপনি যদি এই টিপসটি ফলো করেন তাহলে আপনার কালো চেহারা ফর্সা ও উজ্জ্বল সুন্দর হয়ে যাবে। এটি সম্পূর্ণরূপে প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে তৈরি করতে হবে যা আপনি আপনার নিজের ঘরেই বানাতে পারবেন। এটি সম্পূর্ণরূপে প্রাকৃতিক হওয়ায় তাই এর কোন সাইড ইফেক্ট নেই।

তাহলে চলুন জেনে নেই কিভাবে কালো চেহারা ফর্সা করার এই মিস্রনটি আপনি ঘরে বসে তৈরি করবেন। অনেক নামকরা বিউটি এক্সপার্টদের মতে কালো চেহারা ফর্সা করার জন্য এবং চেহারা থেকে ময়লা ও কালো দাগ তুলে আনতে এর থেকে ভালো সলিউশন আর নাকি হতেই পারে না। তাহলে বুজতেই পারছেন এই টিপসটি কতটা কার্যকরী।

প্রস্তুত প্রণালীঃ কালো চেহারা ফর্সা করার উপাদান তৈরী করতে প্রথমে একটি পাত্রে দুই টেবিল চামচ চিনি নিয়ে নিন। আপনি শুনে হয়তো অবাক হবেন যে, ত্বকের কালো দাগ তুলতে চিনির ব্যবহার দারুন কার্যকরী একটি উপাদান। চিনিকে ন্যাচারাল স্ক্রাবার বলা হয়। কারন চিনি ত্বকের মৃত কোষকে তুলে এনে ত্বকের উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনতে পারে।

আর লাগবে অ্যালোভেরা জেল। আপনি চেষ্টা করবেন অ্যালোভেরার পাতা বা ডাল থেকে জেলটা সংগ্রহ করার। অ্যালোভেরার পাতা না পেলে ভালো ব্র্যান্ডের যে কোন জেল হলেও চলবে। অ্যালোভেরা কালো চেহারা ফর্সা করার জন্য খুবই কার্যকরী। কথায় আছে নিয়মিত অ্যালোভেরা ব্যাবহার করলে তাকে আর অন্য কোন কসমেটিক্স ব্যাবহার করতে হবেনা। অ্যালোভেরা জেল অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট উপাদান সমৃদ্ধ এবং রয়ছে ভিটামিন- এ, বি, সি ও এ। ফলে এই জেল ত্বকের গভীরে প্রবেশ করে ত্বকের জন্য যথেষ্ট পরিমাণে পুষ্টি যোগায়।

আপনি এখন দুই টেবিল চামুচ অ্যালোভেরা জেল নিয়ে চিনির সাথে ভাল করে মিশিয়ে নিন। তারপর এর সাথে চা চামুচের চার ভাগের এক ভাগ কাঁচা হলুদ পাটায় পিষে তার পেস্ট মিশিয়ে নিন। সেই প্রাচীনকাল থেকেই ত্বকের ডার্ক সার্কেল দূর করা সহ ত্বকের সকল যত্নে হলুদের ব্যবহার হয়ে আসছে। ত্বক থেকে যে কোন দাগ তুলতে ও ত্বকের কোনো ক্ষতিকর প্রভাব থাকলে তা দূর হয়ে যায় এই হলুদ ব্যবহারের ফলে।

এখন সবগুলো উপাদান ভালোভাবে মেশান হয়ে গেলে পরে মিশ্রণটির মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ একটি উপাদান মেশাতে হবে। আর সেটা হল শসা। ত্বকের যত্নে শশা এমন একটি উপাদান যার গুণ বলে শেষ করা যাবে না। আপনার ত্বকের পুষ্টি ও বয়সের ছাপ দূর করে ত্বকের তারুণ্য ধরে রাখে এই শসা। ত্বকের গভীর হতে দাগ তুলে ত্বকে দাগ মুক্ত রাখে শসা। এছাড়া শসার রয়েছে অসংখ্য পুষ্টি ও ঔষধি গুণাবলী। তাই কচি দেখে একটি শসাকে পেস্ট করে শুধুমাত্র দুই চামচ শসার রস মিশ্রণের সাথে মিশিয়ে দিন।

এখন সবশেষে যে উপাদানটি মেশাতে হবে সেটা হল বেসন। বেসন আপনার চেহারা থেকে যে কোন কালো দাগমেছতার দাগ তুলতে সাহায্য করে। তাই মিশ্রণটির মধ্যে এক টেবিল চামুচ বেসন নিয়ে সবগুলো উপাদান একটু সময় নিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। যাতে প্রত্যেকটি উপাদান ভালোভাবে সবগুলোর সাথে মিশে যায়। আর মিশ্রণটি যদি একটু পাতলা হয়ে যায় তাহলে সাথে কিছুটা বেসন দিয়ে দিতে পারেন। আবার যদি বেশি ঘন হয়ে যায় তাহলে শসার রস বা অন্য যে কোন উপাদান সমানুপাতিক হারে মিশিয়ে পাতলা করে নিতে পারেন। ব্যাস এভাবেই তৈরি হয়ে গেল কালো চেহারা ফর্সা করার সিক্রেট টিপস বা সিক্রেট উপাদান।

ব্যাবহার প্রণালীঃ এখন এই উপাদানটি বা মিশ্রণটি আপনি প্রতিদিন রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আধাঘন্টা আগে আপনার মুখে মেসেজ করে করে লাগিয়ে নিতে হবে। তবে এটি আপনি আপনার শরীরের যেকোনো কালো হয়ে যাওয়া স্থানে যেমন হাতে পায়ে ঘাড়ে গলায়ও লাগাতে পারেন। এভাবে মিশ্রণটি লাগিয়ে রেখে বিশ মিনিট পর পরিষ্কার পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে। তবে মিশ্রণটি মুখে বা ত্বকের যে কোন স্থানে লাগানোর পূর্বে আপনার মুখমন্ডল বা লাগানোর স্থানটি ভালো করে ধুয়ে পরিষ্কার করে নিয়ে তারপর লাগাবেন। এভাবে মিশ্রণটি নিয়মিত চার সপ্তাহ ব্যবহারে ফলে আপনার ত্বক থেকে সমস্ত কালো আর ময়লা দাগ দূর হয়ে যাবে। আপনি মাত্র এক সপ্তাহ ব্যবহারে এটি রেজাল্ট দেখতে পাবেন।

কালো চেহারা ফর্সা করার জন্য কিছু পরামর্শঃ

মুখের ত্বক হল সবচাইতে স্পর্শকাতর একটি অংশ বা অঙ্গ। তাই সবসময় মুখের বাড়তি একটু যত্ন নেয়াটা জরুরী। তেল চর্বি জাতীয় খাবার ত্বকের জন্য ক্ষতিকর। এগুলো এড়িয়ে বেশী বেশী শাকসবজি খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলতে পারলে মুখের ত্বক ভাল থাকবে। পরিমিত পানি পান এবং পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুম শরীর ও ত্বকের জন্য অত্যাবশ্যকীয় একটি উপাদান।

তাই বেশী বেশী পানি পান করুন এবং নিয়মিত সাত থেকে আট ঘণ্টা ঘুমানোর চেষ্টা করুন। বাইরে বেরুলে রোদ এড়িয়ে চলুন। প্রয়োজনে ছাতা ব্যাবহার করুন। আপনার মুখে ব্যাবহারের জন্য আপনার ত্বকের সাথে মানানসই ক্রিম বা লোশোন নিয়মিত ব্যাবহার করুন। তাহলে আপনার মুখ সুন্দর থাকবে। অন্তত এই পরামর্শগুলি ফলো করলে আশাকরি আপনার মুখের ত্বক ভাল থাকবে ও সুন্দর থাকবে সবসময়।

Google search engine
পূর্ববর্তী আর্টিকেলরোদে পোড়া দাগ দূর করে ত্বক ফর্সা করার সহজ টিপস
পরবর্তী আর্টিকেলProtected: Meghna Life Insurance Company তে করা আপনার Policy Status দেখুন

একটি মন্তব্য করুন

এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন
অনুগ্রহপূর্বক আপনার নাম লিখুন