এলোভেরা দিয়ে রূপচর্চা করার টিপস। পার্লারের ফেসিয়াল করুন ঘরে বসে

128
এলোভেরা দিয়ে রূপচর্চা

এলোভেরা দিয়ে রূপচর্চা করার কয়েকটি কার্যকরী টিপস সম্পর্কে জানুন। এই টিপসগুলো জানা থাকলে আপনি বিউটি পার্লারে গিয়ে বিউটিশিয়ানের হাতে ফেসিয়াল না করে এখন থেকে ঘরে বসে নিজেই ফেসিয়াল করতে পারবেন।

ত্বক ভালো রাখতে এলোভেরার রস খাওয়া ও ব্যবহার করা দুটোই খুব উপকারী। নিয়মিত এই পাতার রস ব্যবহারে ত্বক দ্রুত উজ্জ্বল ও সুন্দর হয়ে উঠে। অসংখ্য ভিটামিনে ভরপুর এই এলোভেরায় রয়েছে এন্টি-অক্সিডেন্ট, এন্টি-ফ্লামেটরি, অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়া ও অ্যালোমিনের মত ঔষধি গুণ। আরও আছে ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, জিঙ্ক, সোডিয়াম, আয়রন, পটাশিয়াম ইত্যাদি।

আমাদের শরীর, ত্বক ও চুলের জন্য অনেক উপকারী এইসব গুণ। তাই আপনাদেরকে এখানে জানাবো এলোভেরা দিয়ে রূপচর্চা করে কিভাবে আপনার ত্বকের যত্ন নিবেন এবং ত্বক সুন্দর রাখবেন সবসময়।

আপনি যেভাবে ত্বকে এলোভেরা দিয়ে রূপচর্চা করবেনঃ

বাজারে এলোভেরা খোঁজ করলে আপনি এলোভেরার তৈরি অনেক ধরনের জেল বা প্রোডাক্ট পাবেন। কিন্তু বিউটি এক্সপার্টদের মতে ঘরোয়াভাবে এলোভেরা জেল তৈরি করে তা ব্যবহার করতে পারলে সবচেয়ে ভাল এবং উপকারও পাওয়া যায় বেশী।

এলোভেরা দিয়ে রূপচর্চা করতে শুধু এলোভেরা জেল ব্যবহার করতে পারেন আবার ফেইস প্যাক বানিয়েও এলোভেরা জেল ব্যবহার করতে পারেন। আপনি দুইভাবে ব্যাবহার করলেই উপকার পাবেন।

বিউটি পার্লারে গিয়ে হাজার হাজার টাকার ফেসিয়াল না করে তাই ঘরে বসে নিজেই এলোভেরা দিয়ে একবার ফেসিয়াল করেই দেখুন। আপনাকে আর পার্লারে যেতে হবে না। আপনার ত্বক ইন্সট্যান্টলি ফর্সা, সুন্দর আর অনেক কোমল হয়ে যাবে। চেহারা থেকে বয়সের ছাপ দূর হয়ে আপনি পাবেন লাবণ্যময় একটি সুন্দর ত্বক।

এলোভেরা দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায়ঃ

নিচে এলোভেরা দিয়ে রূপচর্চা করার কার্যকরী ০৪টি টিপস খুব সহজে ধাপে ধাপে আলোচনা করা হল। সহজ এই টিপসগুলো জানা থাকলে ঘরে বসে আপনি নিজেই নিজের রূপচর্চা করতে পারবেন। চলুন তাহলে জেনে নেই সেই টিপস সমূহ কি কি।

১। এলোভেরা ও লেবুর ফেইস প্যাকঃ হিসাবে ও রোদে পোড়া দাগ সারাতে এই ফেস প্যাকটি খুবই কার্যকরী। এছাড়া ত্বককে নরম ও মসৃণ রাখতেও এই ফেইস প্যাকটি ব্যবহার করতে পারেন। চার চা চামুচ এলোভেরা জেল এর সাথে অর্ধেক পরিমান কাগজি লেবুর রস মিশিয়ে ত্বকে পাঁচ মিনিট ধরে আঙ্গুল দিয়ে সার্কুলেশন করে করে ম্যাসেজ করুন। বিশ মিনিট পর পরিষ্কার পানি দিয়ে ভাল করে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

ব্যাবহার প্রণালীঃ এলোভেরা ও লেবুর তৈরি এই ফেসপ্যাকটি আপনি সপ্তাহে মাত্র তিন দিন ব্যবহার করলেই আপনি পাবেন রোদে পোড়া দাগ মুক্ত নরম তুলতুলে মসৃণ ত্বক।

২। এলোভেরা ও মধুর ফেইস প্যাকঃ চার চা চামচ অ্যালোভেরা জেল এর সাথে দুই চা চামুচ মধু মিশিয়ে ফেইস প্যাকটি তৈরি করতে হবে। এবার এই প্যাকটি আপনার গালে, গলায় ও ঘাড়ে ভালো করে সার্কুলেশন করে লাগিয়ে নিন। এভাবে লাগানোর পর সর্বোচ্চ পাঁচ মিনিট ধরে মেসেজ করতে থাকুন। তারপর আধা ঘন্টা অপেক্ষা করে ত্বকে প্যাকটি শুকিয়ে গেলে পরিস্কার ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

ব্যাবহার প্রণালীঃ এলোভেরা ও মধু দিয়ে তৈরি এই প্যাকটিও আপনি সপ্তাহে তিন দিন ব্যবহার করতে পারেন। তাহলে আপনার ত্বক হয়ে উঠবে আরও চকচকে গ্লইং ও ফর্সা।

৩। এলোভেরা ও শসার ফেইস প্যাকঃ আপনার ত্বকের অতিরিক্ত তেল ময়লা দূর করে ত্বককে পরিষ্কার করে তুলতে এই ফেইস প্যাকটি অত্যন্ত কার্যকরী। ফলে আপনার মুখও অনেক সতেজ দেখাবে। এই প্যাকটি তৈরি করতে হলে প্রথমে চার চামুচ এলোভেরা জেল, চার চামুচ শসার রস এবং দুই চামুচ টকদই একত্রে ভাল করে মিক্স করে নিন। তারপর এর সাথে কয়েক ফোঁটা গোলাপজল অথবা এসেন্সিয়াল অয়েল মিশিয়ে ফেইস প্যাকটি তৈরি করুন। 

ব্যাবহার প্রণালীঃ এলোভেরা দিয়ে রূপচর্চা করতে এই ফেইস প্যাকটি আপনি প্রতিদিন রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে মুখ ধুয়ে নিয়ে ভালকরে ঘষে মুখে লাগিয়ে নিন ও পনেরো মিনিট পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। তারপর মিশ্রণটি শুকিয়ে গেলে পরিস্কার নরমাল পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

৪। এলোভেরা ও হলুদের প্যাকঃ চার চামুচ এলোভেরা জেল এর সাথে সামান্য পরিমানে কেওলিন, এক চামুচ নিম পাতার গুঁড়া ও এক চামুচ হলুদ গুঁড়া দিয়ে ভাল করে সবগুলো উপাদান একত্রে মিশিয়ে একটি প্যাক তৈরি করুন। তারপর এই প্যাকটি ভাল করে আপনার মুখে ম্যাসেজ করে লাগিয়ে বিশ মিনিট পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। তারপর ত্বকে ব্যবহারের বিশ মিনিট পর মুখ ধুয়ে ফেলুন। 

ব্যাবহার প্রণালীঃ এলোভেরা দিয়ে রূপচর্চা করতে এই প্যাকটি আপনি সপ্তাহের প্রতিদিনই একটি নির্দিষ্ট সময়ে অন্তত একবার করে ব্যবহার করতে পারেন।

শুধুমাত্র এলোভেরা ব্যাবহার করে একটি কার্যকর ফেসিয়ালঃ

এলোভেরা দিয়ে রূপচর্চা করার অত্যন্ত কার্যকরী এই ফেসিয়ালটি ঘরে নিজেই একবার করে দেখুন। আপনার ত্বকের কালচে ভাব দূর হয়ে ত্বক কাঁচের মত চকচকে কোমল আর উজ্জ্বল ফর্সা হয়ে উঠবে যে আপনি আর কখনও বিউটি পার্লারে গিয়ে ফেসিয়াল করতে চাইবেন না। এই জন্য ফেসিয়াল শুরুর প্রথমেই এলোভেরার পাতা হতে সমস্ত জেল সমূহ বের করে আলাদা একটি পাত্রে নিয়ে নিন।

কারণ এলোভেরার জেলের সাথে আরও অন্যান্য উপাদান মিশিয়ে আমরা এই ফেসিয়ালটি সম্পন্ন করব। আর বারংবার যাতে এলোভেরার জেল বানাতে না হয় তাই একবারেই বেশী করে এলোভেরার জেল তৈরি করে নিতে হবে। এখন আমরা এলোভেরা দিয়ে রূপচর্চা করার জন্য এই ফেসিয়ালটি চারটি স্টেপে কমপ্লিট করব। সেগুলো হল –

১। ক্লিনজিং।

২। স্ক্রাবিং।

৩। ফেসিয়াল ম্যাসেজ। এবং

৪। ফেইস প্যাক।

১। ক্লিনজিংঃ এলোভেরা দিয়ে ফেসিয়ালের শুরুতে প্রথমে একটি পাত্রে দুই চামুচ এলোভেরা জেল ও দুই চামুচ কাঁচা দুধ নিয়ে ভালো করে মিক্স করে নিন। ব্যাস ক্লিনজারটি তৈরি হয়ে গেছে। এটা হলো একটি বিশেষ ধরনের পুষ্টিকর ক্লিনজার ফেসিয়াল।

এখন ক্লিনজারটি আপনার ত্বকে দুই মিনিট ধরে মেসেজ করুন। এই ভাবে ম্যাসেজ করার ফলে ত্বকের সমস্ত ময়লা দূর হয়ে যায় ও ত্বক পরিষ্কার হয়ে যায়। তারপর দুই মিনিট পর টিস্যু বা পাতলা কাপড় দিয়ে সোগুলো মুছে ফেলুন বা মুখ ধুয়ে নিন।

২। স্ক্রাবিংঃ স্ক্রাবার তৈরীর জন্য প্রথমে একটি পাত্রে এক চামুচ চালের গুঁড়া নিয়ে নিন। তারপর এর মধ্যে দুই চামুচ এলোভেরা জেল দিয়ে ভালো করে মিক্স করে নিন। এখন এই স্ক্রাবটি আপনার মুখে আঙ্গুল দিয়ে সার্কুলেশন করে মেসেজ করুন পাঁচ মিনিট পর্যন্ত।

ত্বকের রং উজ্জ্বল করতে চালের গুঁড়া খুব কার্যকরী। এই পাঁচ মিনিট ধরে ম্যাসেজ এর ফলে আপনার ত্বকের সমস্ত কালো ময়লা দাগ উঠে গিয়ে মুখ পরিষ্কার হয়ে যাবে। তারপর নরমাল পরিস্কার পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

৩। ফেসিয়াল ম্যাসেজঃ একটি পাত্রে দুই চামুচ এলোভেরা জেল নিয়ে এর মধ্যে এক চামুচ অ্যালমন্ড অয়েল ও দুইটা ভিটামিন- ই ক্যাপসুল দিয়ে সবগুলো উপাদান ভাল করে মিশিয়ে নিন। ব্যাস এভাবে আপনার ফেসিয়াল ম্যাসেজ জেলটি তৈরি করা হয়ে গেল। এখন এই মিশ্রণটি আপনার ত্বকে দশ মিনিট পর্যন্ত সার্কুলেশন করে ম্যাসেজ করে লাগিয়ে নিন যেভাবে ফেসিয়াল ম্যাসেজ করা হয়।

এই মিশ্রণটি শীতকালে খুব কার্যকরী ত্বকের জন্য। কারণ শীতে ত্বকের শুষ্কতার হাত থেকে এই ফেসিয়ালটির ব্যবহার আপনাকে রক্ষা করবে। সাথে আপনার ত্বক হবে প্রাণবন্ত আর তুলতুলে নরম ও কোমল। এছাড়া ত্বক থেকে বয়সের ছাপ, কুচকে যাওয়া সব দূর হয়ে যাবে। তারপর পরিষ্কার পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

৪। ফেইস প্যাকঃ একটি পাত্রে দুই চামুচ আটা, আধা চামুচ হলুদ গুঁড়া এবং তিন চামুচ এলোভেরা জেল মিশিয়ে ভালো করে সবগুলো উপাদান মিক্স করে নিন। তারপর এই মিশ্রণটি আপনার ত্বকে ভালো করে ঘষে লাগিয়ে নিন।

এই ফেইস প্যাকটি আপনার কাল ত্বককে অনেক উজ্জ্বল ও ফর্সা করে তুলতে খুবই কার্যকরী। তার সাথে সাথে আপনার ত্বক থেকে সমস্ত প্রকার দাগকেও দূর করে দিবে। এছাড়াও এই ফেস প্যাকটি ব্যবহার করলে আপনার ত্বকে একটি ন্যাচারাল গ্লইংনেস ও ব্রাইটনেস চলে আসবে।

আপনার ত্বকে এই প্যাকটি ভালকরে ম্যাসেজ করে লাগিয়ে রেখে দশ মিনিট পর্যন্ত রেখে দিন। তারপর দশ মিনিট পর পরিষ্কার পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন অথবা মুছে ফেলুন।

আর এরই মাধ্যমে আপনার ফেসিয়ালের পুরো প্রসেসটি কমপ্লিট হয়ে গেল। এখন আপনি নিশ্চয় আপনার চেহারার উজ্জ্বলতা ও সৌন্দর্যের পার্থক্যটা দেখতে পাচ্ছেন। শুধুমাত্র এলোভেরার সাহায্যে ফেসিয়াল করে ত্বককে কতটা সুন্দর আর চকচকে উজ্জ্বল করা যায় আশা করি আপনারা বুঝতে পেরেছেন।

আপনারা ঘরে বসে এলোভেরা দিয়ে রূপচর্চা করার এই চারটি স্টেপকে একবার ট্রাই করে দেখুন। আপনাকে আর বিউটি পার্লারে যেতে হবে না। এখন থেকে ঘরে বসে নিজের ফেসিয়াল নিজেই করতে পারবেন। এমনকি ঘরের অন্যদেরকেও এই ফেসিয়ালটি করে দিতে পারবেন। এতে আপনার সময় ও অর্থ দুটোই বাঁচবে। তাহলে আজ থেকে শুরু হোক এলোভেরা দিয়েই আপনার সম্পূর্ণ ত্বকের যত্ন। 
পূর্ববর্তী আর্টিকেলনখ বড় করার সহজ উপায়। দ্রুত হাতের নখ লম্বা ও সুন্দর করতে চান ?
পরবর্তী আর্টিকেলবোকা মানুষ চেনার উপায় কি ? একজন বোকা মানুষ চেনার ১২টি উপায়।

একটি মন্তব্য করুন

এখানে আপনার মন্তব্য লিখুন
অনুগ্রহপূর্বক আপনার নাম লিখুন